আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীর নির্বাচনী ইশতেহার

ঐতিহ্য, বানিজ্য ও পর্যটন নির্ভর নান্দনিক চাঁদপুর গড়ার পথচলায় নির্বাচনী ইশতেহার অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৮ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার দুপুরে চাঁদপুর শহরের নতুনবাজারস্থ আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী অ্যাড. জিল্লুর রহমান জুয়েলের নির্বাচনী কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সম্মুখে নির্বাচনি ইশতেহার ঘোষনা করা হয়।

জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ডা. জেআর ওয়াদুদ টিপুর সভাপতিত্বে নির্বাচনী ইশতেহার পাঠ করেন চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী অ্যাড. জিল্লুর রহমান জুয়েল।

এ সময় তিনি বিভিন্ন প্রসঙ্গ তুলে ধরে বক্তব্যে বলেন, আমার নির্বাচনী কার্যক্রমে অনেক স্থানেই আমার ব্যানার পেস্টুন ছিড়ে ফেলা হয়েছে। তারপরও আমি নির্বাচনি কার্যক্রম সুষ্ঠু রাখকে কিছুই বলা হয়নি। বরং আমি নির্বাচনী কাজে বিএনপি কার্যালয়সহ বিভিন্ন স্থান থেকে আমার ব্যানার পেস্টুন নামিয়ে ফেলেছি। আমি সর্বদা চেয়েছি চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচন একটি স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ। চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচনে কোনোরূপ সহিংসতা ঘটেনি। আমি সব সময় সকলকে সহযোগিতা করার চেষ্টা করেছি। স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে আমি চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচনে শতভাগ বিজয়ী হবো আশাবাদী।

তিনি আরো বলেন, চাঁদপুর সরকারি কলেজে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি মুরাল তৈরি করা হয়েছে। যা সারাদেশের মধ্যে অন্যতম। নতুন করে মনে হয়না আর বঙ্গবন্ধুর মুরাল করা লাগবে। চাঁদপুর পৌরসভায় আধুনিক ডাম্পিং ও বর্জ ব্যবস্থা করা হবে। ইশতেহার মানে এই নয় যে, ইশতেহার বাইরে কোন কাজ করা যাবে না। আমি ইশতেহারের বাইরেও ব্যাপক কাজ করবো। বর্তমানে চাঁদপুর পৌরসভায় ২৫ কোটি টাকা বিদুৎ বিল ঋণ এবং র বেতন বকেয়া রয়েছে। এর মধ্যে পৌরসভার দায়িত্ব পালন করাটা কঠিন। তারপর আমি নির্বাচিত হলে চাঁদপুর পৌরসভা হবে একটি আত্মনির্ভরশীল উন্নয়নশীল পৌরসভা।

ইশতেহারের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম পাটওয়ারী দুলাল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সহ সভাপতি আলহাজ ইউসুফ গাজী।

আগামী ১০ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচনে আমি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীকে মেয়র পদে অংশ নিচ্ছি। এ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধীতাকারী সকল প্রার্থীর প্রতি রইলো আমার এবং আমার প্রিয় দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে অভিনন্দন।

ইশতেহারে উল্লেখ যোগ্য বিষয় রয়েছে : ঐতিহ্য সমৃদ্ধ বাণিজ্যিক চাঁদপুর,চাঁদপুরের সম্ভাবনা-পর্যটন, পর্যটনের বিপুল সম্ভাবনা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে আমাদের প্রিয় এ শহর। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যতবারই চাঁদপুরে এসেছেন ততবারই নদী কেন্দ্রিক পর্যটনের সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করেছেন। এ সম্ভাবনা নিয়ে সাংসদ ডাঃ দীপু মনি এম.পি মহোদয়ের ব্যাপক পরিকল্পনা রয়েছে।

এ লক্ষ্যে পৌরসভা সরকারের সেই পরিকল্পনার আদলে চাঁদপুরকে গড়ে তুলতে কাজ করবে। বড়ষ্টেশনের মোলহেড অংশটিকে আরো নান্দনিক ভাবে গড়ে তোলা হবে। শহরের পুরাণ বাজার ও নতুন বাজার প্রান্তের নির্মিতব্য স্থায়ী বাঁধের দীর্ঘ অংশ জুড়ে রিভার ড্রাইভের পাশাপাশি সবুজায়ন, দৃষ্টিনন্দন স্থাপত্য শৈলী ও বসার স্থান নির্মাণ করা হবে। ডাকাতিয়া ও মেঘনা নদীতে ভাসমান রেঁস্তোরা ও ওয়াটার বাস চালু করা হবে। পৌরসভার অর্থায়নে তারকাখচিত একটি আধুনিক আবাসিক হোটেল নির্মাণ করা হবে। যা দেশী-বিদেশী পর্যটকদের চাঁদপুরে অবস্থানকে নিরাপদ ও আকর্ষণীয় করবে।

নান্দনিক চাঁদপুর : শহরের ঐতিহ্যবাহী এস বি খাল, বিদ্যাবতী খালের প্রয়োজনীয় সংস্কার করে মূল নদীর সাথে সংযোগ করে স্বাভাবিক পানি প্রবাহ নিশ্চিত করা হবে। চাঁদপুর শহরের লেকগুলোর দুই প্রান্ত বাঁধাই করে ফোয়ারা নির্মাণ করার মধ্য দিয়ে দৃষ্টিনন্দন করা হবে। বহুতল বিশিষ্ট একটি আধুনিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র গড়ে তোলা হবে। এতে পাবলিক লাইব্রেরী, আর্কাইভ, মিনি অডিটোরিয়াম, জেষ্ঠ্য নাগরিকদের ও নারীদের জন্য পৃথক পৃথক নির্ধারিত ফ্লোর থাকবে। যাতে বিনোদনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে। পুরাণ বাজার ও নতুন বাজার অংশে একাধিক মুক্তমঞ্চ গড়ে তোলা হবে। চাঁদপুর শহর বিলবোর্ড মুক্ত করা হবে। পৌরসভার অর্থায়নে ও তত্ত¡াবধানে চাঁদপুর শহরকে সবুজায়ন করা হবে।

নাগরিক সুবিধাঃ পৌরসভার কার্যক্রম প্রযুক্তি নির্ভর ও ডিজিটালাইজড করা হবে। পৌরসভার প্রতিটি এলাকা পর্যায়ক্রমে সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হবে। ড্রেনেজ সিস্টেমে প্রয়োজনীয় পরিবর্তন ও সংস্কার করা হবে। পুরনো সড়ক যথাসম্ভব প্রশস্তকরণ ও সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হবে।

যানজট নিরসনে একাধিক বিকল্প সড়ক নির্মাণ করা হবে। শহরের সকল সড়কে এলইডি লাইট স্থাপনের মাধ্যমে আলোকিত চাঁদপুর গড়ে তোলা হবে। পৌরসভার সকল নাগরিকদের জন্য বিশুদ্ধ পানির সরবরাহ নিশ্চিত করা হবে। পৌরসভায় একটি আধুনিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্প গড়ে তোলা হবে। বর্জ্য সংগ্রহ ও ডাম্পিং পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনা হবে।

শহরের সকল ডাস্টবিন পর্যায়ক্রমে তুলে ফেলা হবে। মশক নিধনে কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়া হবে। পৌরসভার অর্থায়নে শহরের পুরাণ বাজার ও নতুন বাজার অংশে দুটি আধুনিক কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ করা হবে। পুরাণ বাজার অংশে একটি নতুন গণকবরস্থান তৈরি করা হবে।

চাঁদপুর পৌরসভার প্রতিটি ওয়ার্ডে ন্যূনতম একটি করে আধুনিক পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করা হবে। যাতে নারী ও পুরুষদের জন্য পৃথক পৃথক ব্যবস্থা থাকবে। মাদক, ইভটিজিং ও কিশোর গ্যাং নির্মূলে পৌরসভা জিরো টলারেন্সে থাকবে। পৌরসভার তত্ত¦াবধানে ও অর্থায়নে একটি কার্যকরী মাদক নিরাময় কেন্দ্র গড়ে তোলা হবে।

পালবাজার,নতুন বাজার,বিপনীবাগ বাজার,লোহারপুল মাছবাজার,বাকালীপট্টি মাছবাজার আধুনিকায়ন করা হবে। পরিকল্পিত চাঁদপুর নির্মাণে নকশা বহির্ভূত কোন স্থাপনা নির্মাণ হতে দেয়া হবে না। যানজট নিরসনে বিশেষ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা চালু করা হবে। অবৈধ যান চলাচল করতে দেয়া হবে না। আর নতুন কোন সিএনজি ও অটোরিক্সা লাইসেন্স প্রদান করা হবে না।

নাগরিক সেবায় ২৪/৭ ভিত্তিতে হেল্পলাইন চালু করা হবে। এছাড়া বিভিন্ন ইশতেহার তুলে ধরে ইশতেহার বাস্তবায়নে চাঁদপুর পৌরসভার সকল নাগরিক ও সাংবাদিকদের সমর্থন ও সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী অ্যাড. জিল্লুর রহমান জুয়েল।

সাংবাদিকদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর প্রেসক্লাব ভারপ্রাপ্ত সভাপতি গিয়াসউদ্দিন মিলন, সাধারণ সম্পাদক এ এইচ আহসান উল্লাহ, সাবেক সভাপতি গোলাম কিবরিয়া জীবন, কাজী শাহাদাত, শহীদ পাটোয়ারী, জালাল চৌধুরী, ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী, সাধারণ সম্পাদক সোহেল রুশদী, টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আল ইমরান শোভন, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ আব্দুল আউয়াল রুবেল, দৈনিক মতলবের আলোর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কে এম মাসুদ, এটিএন বাংলার জেলা প্রতিনিধি প্রার্থনাথ চক্রবর্তী, চাঁদপুর প্রেসক্লাব সদস্য দেলোয়ার হোসেন, চাঁদপুর জেলা ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক তালহা জুবায়ের।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড.মজিবুর রহমান ভূঁইয়া, শাহির হোসেন পাটোয়ারী, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ হারুন অর রশীদ সাগর, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান, ভাইস চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী বেপারী, ফরিদগন্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম রোমান, চাঁদপুর প্রেসক্লাব সাবেক সভাপতি শরীফ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক লক্ষন চন্দ্র সূত্রধর, চাঁদপুর টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক রিয়াদ ফেরদৌস।

Recommended For You

About the Author: News Room

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *