আচার- আচরণে, আদর্শে আমাদের পথিকৃৎ শেখ হাসিনা :পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী

চাঁদপুর প্রতিনিধি:

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নারীর ক্ষমতায়নের কারণে আজ নারী নেতৃত্ব বিশ্ব দরবারে প্রশংসিত। নারীরা হয়েছে স্বাবলম্বী, বেড়েছে তাদের কর্মসংস্থান।

আওয়ামী লীগ সরকারের গত ১৩ বছরে প্রতিটি বিদ্যালয়ের ছাত্রী সংখ্যা বেড়েছে, নারীর ক্ষমতায়ন বেড়েছে। আজ জনশক্তি রপ্তানি ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সফল বাংলাদেশ।

তিনি আরো বলেন,জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের আদর্শ পুরুষ ও ধ্রুবতারা। বর্তমানে আচার -আচরণে,আদর্শে আমাদের পথিকৃৎ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সংযোগ থাকবে বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সাথে। শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের কাছে মডেল হতে হবে। যাতে আপনার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী উন্নত স্বপ্নদর্শণে উদ্বুদ্ধ হতে পারে।

আমি বিদ্যালয়গুলোর অবকাঠামো উন্নয়নে কাজ করার চেষ্টা করছি। আর এলাকার রাস্তাঘাট ও ব্রীজ নির্মাণে আমি বিশেষ বরাদ্দের ব্যবস্থা করবো।

অভিভাবকদের বলবো,আপনারা ছেলেমেয়েদের খাবারের দিকে নজর দিবেন। বেশি করে শাকসবজি ও দুধ ডিম খেতে দিবেন। তাহলে তারা মেধা বিকাশ নিয়ে গড়ে ওঠবে।

এখন আমাদের টেকনিক্যাল লেখাপড়ার দিকে নজর দিতে হবে। অনেক ক্ষেত্রে টেকনিক্যাল পদে চাকরির জন্য লোক খোঁজে পাওয়া যায় না।
কাশিমপুর পূরণ উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
৩ জুন শুক্রবার বেলা ১১ টায় চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণের কাশিমপুর পূরণ উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আলহাজ্ব এডভোকেট নুরুল আমিন রুহুল এমপি বলেছেন, আমি নির্বাচনের আগে আপনাদের কাছে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম, আমি এমপি নির্বাচিত হলে কোনো চাঁদাবাজি, ইয়াবা ব্যবসায়ী থাকবে না। আপনারা বিগতদিনে দেখেছেন,আমি এরকম চিহ্নিতদের কোনো সুযোগ সুবিধা দেয়নি। আগে যারা সন্ত্রাসী কার্যকলাপ করেছে তাদের কেনো জায়গা আমার কাছে নেই।

এছাড়া শিক্ষার অবকাঠামো উন্নয়ন ও গ্রামীণ সড়ক সংস্কার এবং নতুনভাবে নির্মাণে স্বচ্ছতা থাকতে হবে। ঠিকাদারগণ রাস্তায় কোনরকম দুই নম্বর ইটসহ অন্যান্য উপকরণ ব্যবহার করবেন না।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদা হক বলেন, শিক্ষক ও অভিভাবকের কাজ হবে অন্ধের ভূমিকা না থেকে ছেলে মেয়েদের উচ্ছৃঙ্খলতা তথা কিশোর গ্যাং ও ইভটিজিং প্রতিরোধে কার্যকরী ভূমিকা রাখতে হবে। নারীর ক্ষমতায়ন ও স্বাবলম্বী নারী সমাজ গঠনে এলাকায় বাল্য বিবাহ বন্ধে প্রথমে আপনাদেরই পদক্ষেপ নিতে হবে।

বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি বিল্লাল হোসেন প্রধানের সভাপতিত্বে ও সহকারী শিক্ষক মোঃ রফিকুল ইসলামের সঞ্চালনায় এছাড়াও বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান বি এইচ এম কবির আহমেদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি লিয়াকত হোসেন প্রধান এএসপি ইয়াসির আরাফাত, ভাইস চেয়ারম্যান মুবিন সুজন প্রমুখ। পরে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিজয়ী শিক্ষার্থীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

শেয়ার করুন: