ইসলামে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের কোন স্থান নেই: পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী

মতলব উত্তর ব্যুরো

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে ১৯৭১ সালের মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে হিন্দু, মুসলমানসহ সকল ধর্ম গোত্রের মানুষ অসাম্প্রদায়িক একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র গঠনে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। সবাই একসাথে সম্প্রীতির মাধ্যমে বসবাস করার জন্য আত্মত্যাগ করেছেন।

মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সকল ধর্মের মানুষ ও সুধীজনদের অংশগ্রহণে সামাজিক সম্প্রীতি সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।
পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেন, ইসলাম হলো শান্তির ধর্ম, এখানে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের কোন স্থান নেই। ইসলামসহ সকল ধর্মে অপর ধর্মের প্রতি সম্মান দিতে শিখিয়েছে। একটি দেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে হলে সমাজে শান্তি ও সম্প্রীতির বন্ধনকে আরো সুদৃঢ় করতে হবে। এক্ষেত্রে জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে। কেউ রাষ্ট্রকে অস্থিতিশীল ও সমাজে ধর্মীয় বিভাজন তৈরির চেষ্টা করলে পুলিশ জনগণকে সাথে নিয়ে অশুভ শক্তিকে পরাজিত করবে।

ড. শামসুল আলম বলেন, ইসলাম একটি ধর্ম নিরপেক্ষতার ধর্ম। এবং সবচেয়ে বড় মহত্ত্বের ধর্ম। এই ধর্মে শুধুই শান্তির কথা বলা হয়েছে। নবী করিম (স.)হাদিসে স্পষ্টভাবে ইসলাম ধর্মের ব্যাখ্যা দিয়েছেন। ইসলাম ধর্মে জোর জবস্তি বা জবরদখলের কথা বলেনি।

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী বলেন, যদি কেউ ধর্মকে রাজনীতিতে ব্যবহার করে তাহলে সেটা অবশ্যই অসৎ উদ্দেশ্য। আওয়ামী লীগ এমনটা কখনোই করে না। আওয়ামী লীগ ধর্মকে রাজনীতিতে ব্যবহার করেনি কখনো। যে যেই ধর্মই করেন না কেন সম্প্রতি বজায় রাখা সকলের দায়িত্ব। বর্তমানে লক্ষ্য করা যাচ্ছে ধর্মকে নোংরা কাজে ব্যবহার করে ফেসবুকে অপপ্রচার। এটা অবশ্যই এগুলো নোংরামি বলে আমি মনে করি। সুতরাং কেউ ফেক আইডি খুলে কেউ অপপ্রচার যাতে না করে, যেদিকে সবাই নজর রাখবেন। আসন্ন ধর্মীয় উৎসব গুলো যার যার মতে সঠিকভাবে পালন করবেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশরাফুল হাসানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর ২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এড.নুরুল আমিন রুহুল,উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা এম এ কুদ্দুস।

বক্তব্য রাখেন, সহকারী কমিশনার (ভুমি) মো. হেদায়েদ উল্লাহ,সহকারী পুলিশ সুপার আবুল কালাম চৌধুরী, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার মিয়া মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর,গজরা ইউপি চেয়ারম্যান শহীদ উল্ল্যাহ প্রধান, উপজেলা হিন্দু খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি রাধেশ্যাম সাহা চান্দু বাবু,পুজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক শ্যামল চন্দ্র দাস, মতলব উত্তর প্রেসক্লাবের সভাপতি বোরহান উদ্দিন ডালিম, মতলব উত্তর উপজেলা প্রেসক্লাবের সদস্য সচিব মমিনুল ইসলাম, উপজেলা জামে মসজিদের খতিব মাওলানা এনামুল হক প্রমুখ।

শেয়ার করুন: