ঈদের আনন্দে চাঁদপুরে তিন নদীর মোহনায় পর্যটকের মিলনমেলা

নিজস্ব প্রতিনিধি ॥

ঈদের আনন্দে চাঁদপুর বড় স্টেশন মোলহেডের তিন নদীর মোহনায় মেতে উঠেছেন পর্যটকর। ঈদের আনন্দকে ভাগাভাগি করে নিতে চাঁদপুরসহ পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন জেলার পর্যটকরা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত মোলহেডে সময় কাটাচ্ছেন। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের আগমনে সেখানে পরিণত হয়েছে এক মিলন মেলায়।

চাঁদপুরের তিন নদীর মোহনার মনোরম দৃশ্য। মেঘনা বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় নদীর মধ্যে অন্যতম। এর পাশ দিয়েই বয়ে গেছে ডাকাতিয়া, পাশে রয়েছে পদ্মা। আর চাঁদপুরের মেঘনা, ডাকাতিয়া, আর পদ্মাকে ঘিরে রয়েছে শহরের বড় স্টেশন মোলহেড এলাকাটি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সোমবার সকাল থেকে হাজার হাজার দর্শনার্থীদের আগমনে মুখরিত হয়ে উঠে মোলহেড এলাকা। ভ্রমণপিপাসুরা মনোরম এ স্থানটি স্বচোখে অবলোকনে এসে ভিড় জমায়। বিভিন্ন মানুষের উপস্থিতিতে সেখানে সৃষ্টি হয়েছে এক মহা মিলন মেলা। কেউ কেউ নিজস্ব ক্যামেরা কিংবা মুঠোফোনে বিভিন্ন রঙে-ঢঙে সেলফি তুলে আনন্দ উপভোগ করতে দেখা যায়। তবে কোরবানী ঈদ হওয়ার কারণে ঈদের দিন দর্শনার্থীদের তেমন ভীড় দেখা যায় নি। এছাড়া এখানে বিনোদনের জন্য রয়েছে নগর দোলা,চা- কপিচক্র, গোড়া চড়াসহ নানান রকমের বিনোদন।

এদিকে চাঁদপুরের ফাইভ স্টার শিশু পার্ক, মতলব উত্তর উপজেলার মোহনপুর পর্যটন কেন্দ্র ,ফরিদগঞ্জের ডাকাতিয়ার পাড়,লোহগড়মঠ,রুপসা জমিদার বাড়ীতে দর্শনার্থীদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

তবে বিনামূল্যে বিনোদন করার সযোগ থাকায় চাঁদপুর বড় স্টেশন মোলহেডের তিন নদীর মোহনায় মোলহেড এলাকা,ফরিদগঞ্জের লোহগড়মঠ,রুপসা জমিদার বাড়ীতে দর্শনার্থীদের তেমন ভীড় দেখা যায় ।

জানা গেছে , সদর উপজেলার রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নে মিনি কক্স বাজার নামক স্থানে নদীর পানি অতিরিক্ত থাকার প্রবাহিত হওয়ার এই স্থানটি ডুবে যাওয়ার কারণে দর্শনার্থীরা সেইখানে যেতে পারছে না । অনেকে সখের বসত শুরু ট্রলার বা স্পিড বোর্ডের দিয়ে গুরে আসেন।

গুরতে আসা দর্শনার্থীরা জানান, কোনবানীর কাজের ব্যস্ত থাকার পর আজকে এখানে এসে অনেক ভাল লেগেছে। চাঁদপুরের তেমন গুরার মতো স্থান নেই। তাই এখানে গুরতে এলাম ।

সানজিদা নামে এক গৃহবধু। তিনি বলেন, বছরের অন্য সময়গুলোতে আমরা ব্যস্ত থাকি সংসার জীবন নিয়ে। কিন্তু ঈদ এলে স্বামী, ছেলে-মেয়েদের নিয়ে ঘুরতে বের হতে হয়। চাঁদপুরের এ জায়গাটি খুব সুন্দর। আসলেই নদীর হাওয়ায় মনটা জুড়িয়ে যায়। তবে এবছর স্থানীয় প্রশাসন মোলহেডের সৌন্দর্য বর্ধন করায় আমাদের ছেলে-মেয়েরাও বেশ আনন্দ পাচ্ছে।

পর্যটন কেন্দ্রের গেটে সেচ্ছায় সেবক মানিক বলেন , আমরা নজর রেখেছি বিভিন্ন স্থান থেকে আসা পর্যটকদের যেন সমস্যা না হয়।

চাঁদপুর মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ আবদুর রশিদ জানান, ‘প্রতি বছরের মত এবারও আমরা সব ধরনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছি। ঈদকে ঘিরে দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা দিতে শহরের বিভিন্ন স্থানে অতিরিক্ত মোবাইল টিম রয়েছে। এতে মানুষ নির্বিঘ্নে শহরে যাতায়াত এবং ঘোরাফেরা করতে পারবে বলে আশা করছি।’

শেয়ার করুন: