চাঁদপুরের সর্বোচ্চ করদাতার সম্মাননা গ্রহণ করলেন মো: সেলিম খান

স্টাফ রিপোর্টার :

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের উদ্যোগে কর অঞ্চল কুমিল্লা কর্তৃক আয়োজিত ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে চাঁদপুরের সর্বোচ্চ করদাতা হিসেবে সম্মাননা গ্রহণ করলেন চাঁদপুর সদর উপজেলার ১০নং লক্ষ্মীপুর মডেল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান,ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও দৈনিক চাঁদপুর বার্তা’র প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ও প্রকাশক মোঃ সেলিম খান।

১১ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১টায় এ সম্মাননা গ্রহণ করেন তিনি। কুমিল্লা কর অঞ্চলের আয়োজনে আয়করের প্রবৃদ্ধি, দেশ ও দশের সমৃদ্ধি এই স্লোগানকে নিয়ে এ বছর ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। স্বাস্থ্য বিধি মেনে কুমিল্লার বিশ^রোডস্থ হোটেল নূরজাহানের হলরুমে সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কুমিল্লা-৭ নির্বাচনী এলাকার সংসদ সদস্য ও সরকারি প্রতিশ্রুতি সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোঃ আলী আশরাফ।

কর অঞ্চল কুমিল্লার কর কমিশনার মোঃ মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে ও উপ-কর কমিশনার মোঃ আরিফুল হাসান মজুমদার এবং যুগ্ম কর কমিশনার মোঃ শাহআলমের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে কুমিল্লা-৭ নির্বাচনী এলাকার সংসদ সদস্য ও সরকারি প্রতিশ্রুতি সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোঃ আলী আশরাফ বলেন, কর ফাঁকি দেয়ার প্রবনতা আমাদের অনেকেরই রয়েছে। আমাদেরকে কর পরিশোধ করতে হবে। জনগণের আয়ের উপর সরকারকে ট্যাক্স দেয়া প্রয়োজন। আয় কম থাকলে ট্যাক্স দেয়ার প্রয়োজন নেই। বরং রাষ্ট্র আপনাকে সহায়তা করবে। রাষ্ট্র চলে কীভাবে? জনগণের ট্যাক্সের মাধ্যমে। স্বাধীনতা যুদ্ধে যারা যুদ্ধ করেছে তাদের কয়েকজন এ সম্মাননা অনুষ্ঠানে এসেছেন। তারা এখনো সরকারকে ট্যাক্স দিয়ে যাচ্ছেন। এতে আমরা গর্ববোধ করি। বর্তমানে বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে স্বনির্ভরশীল। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতীয় সৈন্যরা আমাদের দেশকে স্বাধীন করতে জীবন দিয়েছে। আর তা সম্ভব হয়েছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে। তখন সাড়ে ৭ কোটি জনগণ ছিল। এদেশের প্রশাসন চালানো কঠিন ছিল। বর্তমানে আমাদের দেশের জমির পরিমাণ কমে গেছে। কেননা, বর্তমানে আমাদের দেশে ১৮ কোটি জনগণের বাস। বর্তমানে আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। আজকের অর্থনীতি বেড়েছে। ট্যাক্স বৃদ্ধি করা আরো প্রয়োজন। যার ২ লাখ টাকা আয় আছে সেই ব্যক্তিকেও ট্যাক্স দিতে হবে। কর কর্মকর্তাদের সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দীর্ঘদিন দেশের বাইরে ছিলেন। তিনি দেশে এসে গণতন্ত্রের জন্য লড়াই সংগ্রাম করেছেন। আর তার ফল হিসেবে গণতান্ত্রিক সরকার গঠন করে দেশকে অর্থনৈতিক ও খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণ করেছেন। করোনাকালীন শেখ হাসিনা সরকার জনগণকে প্রণোদনা দিয়েছেন। এতে করে তিনি বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। পদ্মা সেতু করতে গিয়ে বিশ^ ব্যাংক ফিরে গেছে। কিন্তু শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু দেশের অর্থায়নে করে রেকর্ড স্থাপন করেছেন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কুমিল্লা কর-অঞ্চলের কর-কমিশনার মোঃ মাহবুবুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন কাস্টম এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনার মোঃ বেলাল হোসেন চৌধুরী। অনুভূতি ব্যক্ত করেন চাঁদপুর জেলার সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী মোঃ ফারুক আহমেদ আখন্দ, ব্রাহ্মনবাড়িয়ার কর প্রদানকারী মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন ভূইয়া প্রমুখ।

এছাড়াও চাঁদপুর জেলা থেকে যারা সম্মাননা গ্রহণ করেছেন, তারা হলেন : দীর্ঘ সময় কর প্রদানকারী মোঃ আকতার হোসেন, গোলাম মাওলা সেলিম, চাঁদপুর জেলা সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী মোঃ আব্দুল মান্নান,মোঃ সেলিম খান ও ফারুক আহমেদ আখন্দ। ৪০ বছর বয়সের নিচে তরুণ করদাতা সোহেল আহমেদ খান ও সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী মহিলা শিউলি আক্তার প্রমুখ।

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *