চাঁদপুরে করোনা ভাইরাস নিয়ে গুজবে খাজা মাকসুদ আটক

সংবাদদাতা:

রোগ-শোক, মহামারী এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগ নিয়ে গুজব ছড়ানো এবং অপপ্রচারে লিপ্ত হওয়া কুচক্রী মহল আবারো সক্রিয় হয়ে উঠেছে। বর্তমানে বিশ^ব্যাপী মহামারী আতঙ্ক করোনা ভাইরাস নিয়েও ওই চক্রটি এখন আবার সক্রিয়। এদের অন্যতম খাজা মোহাম্মদ মাকসুদকে চাঁদপুরের গোয়েন্দা পুলিশ আটক করেছে।

সোমবার বেলা পৌনে একটার সময় তাকে চাঁদপুর বাসস্ট্যান্ডস্থ ফয়সালা শপিং কমপ্লেক্সের দ্বিতীয় তলায় অবস্থিত তার মালিকানাধীন সাইমন ডিজিটাল হাউজ এন্ড অফসেট প্রেস থেকে আটক করা হয়।

তার বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ডাঃ ইফতেখার আদনান কর্তৃক মোবাইলে করোনা ভাইরাসে একদিনে চট্টগ্রামে মৃতের সংখ্যা ১৮/১৯ জন উল্লেখ করে যে গুজব রটানো হয়েছিল, এই ভিডিও ক্লিপটি খাজা মাকসুদ তার নিজস্ব ফেসবুক ওয়ালে শেয়ার করে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করে।

খাজা মাকসুদের গ্রামের বাড়ি হচ্ছে চাঁদপুর সদর উপজেলা বাগাদী ইউনিয়নস্থ ইসলামপুর গাছতলা। তার পিতার নাম খাজা মোহাম্মদ অলি উল্লাহ।

জেলা গোয়েন্দা শাখা থেকে প্রাপ্ত তথ্য থেকে জানা যায়, পুলিশ সুপার মোঃ মাহবুবুর রহমান পিপিএম-এর নির্দেশে জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ নূর হোসেন মামুনের নেতৃত্বে এসআই মোঃ রেজাউল করিমসহ সঙ্গীয় ফোর্স গতকাল দুপুরে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে। তখন তার মোবাইলে করোনা ভাইরাস নিয়ে গুজব ছড়ানো এবং অপপ্রচারকারী ডাঃ ইফতেখার আদনানের ভিডিও ক্লিপটি পাওয়া যায়। যেটি খাজা মাকসুদ গত ২১ মার্চ সন্ধ্যা ৭টা ১০মিনিটের সময় শেয়ার করে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি, অস্থিরতা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটানোর চেষ্টা চালায়। তাকে আটকের সময় তার ব্যবহৃত মোবাইল সেটটিও উদ্ধার করা হয়। যেটির মধ্যে ডাঃ ইফতেখার আদনানের সেই গুজবটি আপলোড করা ছিল।

তার বিরুদ্ধে চাঁদপুর সদর মডেল থানায় ২৩ মার্চের তারিখে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, ২০১৮ -এর ৩১(২) ধারায় রুজু করা হয়।

উল্লেখ্য, উক্ত আসামী খাজা মাকসুদের বিরুদ্ধে ৪টি নাশকতা মামলা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। মামলাগুলো হলো : চাঁদপুর সদর মডেল থানা মামলা নং-৬, তারিখ : ৩/১২/২০১৩ খ্রিঃ ধারা ১৪৩/১৪৭/১৪৮/১৪৯/ ৩৩২/৩৩৩/৩০২/৪২৭/৩৪ পেনাল কোড। চাঁদপুর সদর মডেল থানার মামলা নং- ৪৪, তারিখ- ২২/০২/২০১৩ খ্রিঃ, ধারা- ১৪৩/৩৫৩/৩৩২/৩০৭/৩৩৪/৩৪ পেনাল কোড। চাঁদপুর সদর মডেল থানার মামলা নং- ৪৫, তারিখ- ২২/০২/২০১৩ খ্রিঃ, ধারা-১৯৭৪ সনের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ১৬ (২)। চাঁদপুর সদর মডেল থানার মামলা নং-০৭, তারিখ- ০৩/১২/২০১৩ খ্রিঃ, ধারা- ১৯০৮ সালের বিস্ফোরকদ্রব্য আইনের ৩/৬।

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *