চাঁদপুরে জাটকা রক্ষায় জনসচেতনতামূলক নৌ-র‍্যালি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

চাঁদপুরে পদ্মা-মেঘনার হাইমচরের চরভৈরবী থেকে মতলব উত্তরের ষাটনলের ৭০ কিলোমিটার নদী এলাকা পর্যন্ত অভয়াশ্রমের জাটকা রক্ষা অভিযানের অংশ হিসেবে নদীতে নৌ-র‍্যালি উদ্বোধন করেন জেলা টাস্কফোর্স কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক অন্জনা খান মজলিশ।

১ মার্চ মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় বড়ষ্টেশন মোলহেড প্রাঙ্গণ থেকে এই নৌ -র‍্যালি উদ্বোধন করা হয়। নৌ-র‍্যালি উদ্বোধনকালে জেলা প্রশাসক অন্জনা খান মজলিশ বলেন, জেলেদের অভয়াশ্রমের এই ২ মাসে চাউল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। তাছাড়া ঋণের কিস্তির জন্য জেলেদের যাতে চাপ না দেয় সেজন্যও আমরা পদক্ষেপ নিয়েছি। নদীতে ইলিশের খাদ্য সঙ্কট কাটাতে আমরা এই ২ মাস সবধরনের ড্রেজিং কার্যক্রম পুরোপুরি বন্ধ ঘোষণা করেছি। জাটকা থেকে বড় ইলিশ পেতে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।

তিনি আরো বলেন,ইলিশ আমাদের জাতীয় মাছ এবং জাতীয় সম্পদ। এটি রক্ষা করা আমাদের সকলের দায়িত্ব। জাটকাগুলোই বড় ইলিশের রুপান্তর হবে। আগামী দুই মাস আমাদের প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিকসহ সকলকে নিয়ে জাটকা রক্ষা করব।

এ সময় চাঁদপুর অঞ্চলের নৌপুলিশ সুপার মোঃ কামরুজ্জামান, মৎস্য ইনস্টিটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. হারুনুর রশীদ, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা গোলাম মেহেদী হাসান, চাঁদপুর প্রেসক্লাব সভাপতি গিয়াসউদ্দিন মিলন, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান, ইউএনও সানজিদা শাহনাজ, জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আসিফ মহিউদ্দীন, জেলা প্রশাসনের অন্য কর্মকর্তাবৃন্দ, কোস্ট গার্ড, নৌ-বাহিনী, ফায়ার সার্ভিস, সাংবাদিকবৃন্দ ও মৎস্যজীবী সংগঠনের প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে আলোচনা সভা শেষে জেলেসহ নানা শ্রেণী পেশার মানুষের মাঝে জাটকা সংরক্ষণে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করা হয়। পরে বেশ কয়েকটি স্পীডবোট ও ট্রলার নিয়ে নৌ র‍্যালীটি চাঁদপুর বড় স্টেশন মোলহেড থেকে শুরু হয়ে পদ্মা মেঘনায় ট্রহল দেয়। র‍্যালীতে জেলা প্রশাসক অন্জনা খান মজলিশ এই ২ মাসে জাটকা সংরক্ষণ অভিযান সফল করতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

উল্লেখ্য, চাঁদপুর সদর, হাইমচর, মতলব দক্ষিণ ও মতলব উত্তরে নিবন্ধিত ৪৪ হাজার ৩৫ জন জেলে রয়েছে। যাদেরকে অভয়াশ্রমের এই ২ মাসে জনপ্রতি ৪০ কেজি হারে চার মাস মোট ১৬০ কেজি করে চাউল দেয়া হবে। ইতিমধ্যে, ফেব্রুয়ারি মাসের জেলে চাল বিতরণের জন্য আভয়াশ্রম নদী বেষ্টিত চাঁদপুর সদর,হাইমচর,মতলব উত্তর ও দক্ষিণ এই ৪ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট ভিজিএফের ডিও দেয়া হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা গোলাম মেহেদি হাসান।

শেয়ার করুন: