চাঁদপুরে পুলিশের সাথে স্বেচ্ছাসেবক দলের সংঘর্ষে আহত অর্ধশত

নিজস্ব প্রতিবেদক:

চাঁদপুর শহরে আকস্মিকভাবে পুলিশ ও বিএনপির মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। জেলা বিএনপির আহ্বায়ক শেখ ফরিদ আহমেদ মানিকের বাসার সামনে স্বেচ্ছাসেবক দলের বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে পুলিশের সাথে এ সংঘর্ষ ঘটে। এ সময় ইট-পাটকেলের আঘাত, টিয়ারসেল ও শর্টগানের গুলিতে প্রায় অর্ধশতজন আহত হয়েছে। এর মধ্যে বেশ ক’জন পুলিশ সদস্য রয়েছেন। বিএনপি কর্মীদের ছোড়া ইটের আঘাতে বেগম জামে মসজিদের গ্লাস ভাংচুর হয়েছে।

৯ মার্চ বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। প্রতক্ষ্যদর্শী সূত্রে জানা যায়, দ্রব্যমূল্যের ঊধ্র্বগতির প্রতিবাদে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের ব্যানারে বিক্ষোভ কর্মসূচি ছিলো। বিকেল ৩টার পর থেকে শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে বিএনপি নেতা-কর্মীরা মিছিলসহ জেলা বিএনপি কার্যালয়ের দিকে আসতে থাকে। একপর্যায়ে কয়েক হাজার নেতা-কর্মী বিএনপি কার্যালয়ের সামনে থেকে মনিরা ভবনের তথা বেগম মসজিদের সামনে সড়ক পর্যন্ত জড়ো হয়। তারা সড়ক বন্ধ করে সমাবেশ করতে ছিলো। এসময় পুলিশ গিয়ে সড়ক থেকে নেতা-কর্মীদের সরে যেতে বললে প্রথমে পুলিশের বাক-বিতন্ডা হয়।

এক পর্যায়ে পুলিশের উপর ইট-পাটকেল ছুড়তে থাকে। আকস্মিক ইট-পাটকেল ছুড়তে থাকায় পুলিশ প্রথমে পিছু হটে বেগম মসজিদের গেটের ভেতরে আশ্রয় নেয়। তখন বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে আরো ব্যাপকভাবে ইট-পাটকেল ছুড়তে থাকে। তাদের ইট-পাটকেলের আঘাতে মসজিদের গ্লাস ভাংচুর হয়। তখন পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ারসেল ও শটগানের গুলি ছুড়ে। এরপর বিক্ষোভকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

খবর পেয়ে চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আসিফ মহিউদ্দিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি জানান, বিএনপির নেতা-কর্মীরা রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে সমাবেশ করছিল। এতে যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। পুলিশ বাধা দিলে বিএনপির নেতা-কর্মীরা পুলিশের ওপর হামলা চালায় এবং সরকারি কাজে বাধা প্রদান করে। আমরা যে ট্রাকটির উপর দাঁড়িয়ে সমাবেশ করেছিল সেটি জব্দ করেছি। এই ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদের প্রত্যেককে আইনের আওতায় আনা হবে।

এর আগে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক হযরত আলী ঢালী ও সদস্য সচিব ইব্রাহিম কাজী জুয়েলের নেতৃত্বে একটি বিশাল মিছিল পৌর ঈদগাহ মাঠ থেকে বের হয়ে জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনের সড়কে অবস্থান নেয় এবং ট্রাকের উপর অস্থায়ী মঞ্চে তারা দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করে।

আসিফ মহিউদ্দিন আরো জানান, রাস্তা অবরোধ করে সমাবেশ করায় পুলিশ আন্দোলনকারীদের বাধা প্রদান করা হয়। তখন আন্দোলনকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কাঁদানো গ্যাস ও ফাঁকা গুলি ছুড়ে । সব মিলিয়ে প্রায় ৩০ রাউন্ড। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

শেয়ার করুন: