চাঁদপুরে বই পেল ৫ লাখ শিক্ষার্থী

নিজস্ব প্রতিনিধি ॥

সারাদেশের মতো চাঁদপুরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে নতুন শিক্ষাবর্ষের প্রথম দিনে শুরু হয়েছে বই উৎসব। নতুন বই পেয়ে আনন্দ-উল্লাস ভাসছে শিক্ষার্থীরা। চাঁদপুর শহর ও জেলার প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে রোববার সকালে উৎসব করে শিক্ষার্থীদের হাতে বিনা মূল্যে পাঠ্যবই তুলে দেওয়া হচ্ছে।

মতো চাঁদপুরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে নতুন শিক্ষাবর্ষের প্রথম দিনে শুরু হয়েছে বই উৎসব। নতুন বই পেয়ে আনন্দ-উল্লাস ভাসছে শিক্ষার্থীরা।

চাঁদপুর শহর ও জেলার প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উৎসব করে শিক্ষার্থীদের হাতে বিনা মূল্যে পাঠ্যবই তুলে দেওয়া হয়েছে।

রোববার সকাল ১০টায় শহরের হাসান আলী উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ফাতেমা মেহেরুন ইয়াসিনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান।

এসময় তিনি বলেন, আমাদের সময় বই হাতে পেতে বছরে দুই থেকে তিন মাস সময় কেটে যেত। কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বদৌলতে নতুন বছরের প্রথম দিনেই তোমাদের হাতে বই তুলে দেন। গত দুই বছর করোনা মহামারীর মধ্য দিয়ে অতিক্রম করেছি সারা বিশ্ব স্থবির হয়েছিল। কিন্তু আমাদের এই বই ছাপানো, নতুন কারিকুলাম ঠিক করা, সমগ্র দেশে বই পৌঁছে দেওয়া এ কাজটির কোনো রকম বিঘ্ন ঘটেনি। আমরা তাকে ধন্যবাদ দিচ্ছি। তার এই বিশাল উদ্যোগের কারণে সমগ্র বাংলাদেশে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ে সকল শিক্ষার্থী একযোগে বই পাচ্ছে।
তিনি আরো বলেন, প্রাথমিক বিদ্যালয় আমার একটি পছন্দের জায়গা। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গেলে মনে হয় যে সেখানে অনেক গুলো ফুল ফুটে আছে। আমি আগে যে জেলায় নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত ছিলাম। সেখানে সমস্ত প্রাইমারি স্কুল গুলোতে গিয়েছি। বাচ্চাদের সাথে কথা বলতে এবং বাচ্চাদের কথা শুনতে আমার আসলেই খুব ভালো লাগে। আজ ২,৬৪,০০০ হাজার শিশুকে প্রাইমারি স্কুলের বই দেয়া হবে। আর সমগ্র বাংলাদেশে ৪,০৯,১৫,০০০ শিক্ষার্থীকে বই দেয়া হচ্ছে।

হাসান আলী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ইসমত আরা সাফির সঞ্চালনায় আরো উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোসাম্মৎ রাশেদা আক্তার, চাঁদপুর সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা শাহনাজ, হাসান আলী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি হাসান ইমাম বাদশা, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি এইচ এম আহসান উল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক আল ইমরান শোভন, পৌরসভার প্যানেল মেয়র ফরিদা ইলিয়াস প্রমুখ।

শুরুতে কোরআান তেলাওয়াত করেন স্কুলের শিক্ষার্থী মুক্তাদিস সাফি, গীতা পাঠ করেন সুভদ্র চক্রবর্তী।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন হাসান আলী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ইসমত আরা সাফি। অনুষ্ঠান শেষে জেলা প্রশাসক কোমলমতি শিশুদের হাতে বই তুলে দেন।
জানাগেছে, জেলায় বছরের প্রথম দিন নতুন বই পাচ্ছে ৫ লাখ ২১ হাজার ৯৯৬ শিক্ষার্থী।

জেলা ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসার মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, সাধারণ, কারিগরি, মাদরাসা সব মিলে ২ লাখ ৫৭ হাজার শিক্ষার্থী নতুন বই দেওয়া হয়েছে। তাদের বইয়ের চাহিদা রয়েছে প্রায় ৪০ লাখ। এর মধ্যে চাহিদা অনুযায়ী প্রায় সব শিক্ষার্থীরদের মাঝে বই দেওয়া হয়েছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ফাতেমা মেহের ইয়াসমিন জানান, জেলায় বছরের প্রথম দিন প্রাথমিকের ২ লাখ ৬৪ হাজার ৯৯৬ জন শিক্ষার্থীকে বই দেওয়া হয়েছে। প্রথম শ্রেণিতে ১ লাখ ৫৮ হাজার ৭শ চাহিদা ছিল। পেয়েছে ১ লাখ ৫ হাজার ৮শ টি বই। দ্বিতীয় শ্রেণির ১ লাখ ৫৯ হাজার ৯শ টি বইয়ের চাহিদা মধ্যে পেয়েছে ৫৩ হাজার ৩শ টি বই। আর তৃতীয় শ্রেণিতে ২ লাখ ২৯৯টি বই, ৪র্থ শ্রেণিতে ১ লাখ ৪৩ হাজার ১০৬টি, ৫ম শ্রেণিতে ৩ লাখ ১০ হাজার ৪৮২ চাহিদার মধ্যে পেয়েছে ৩ হাজার ৯০২টি বই। এসব বই শিক্ষার্থীদের মঝে বিতরণ করা হচ্ছে। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে সবগুলো বই শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছে যাবে।

শেয়ার করুন: