চাঁদপুরে বেগম রোকেয়া দিবস উদযাপন

মাসুদ রানাঃ

“সবার মাঝে ঐক্য গড়ি নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধ করি” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে জয়িতা অম্বেষনে বাংলাদেশ শীর্ষক কার্যক্রমের আওতায় শ্রেষ্ঠ জয়িতাদের সম্মাননা প্রদান ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়ে
৯ ডিসেম্বর শুক্রবার দুপুর ১২ টায় চাঁদপুর জেলা প্রশাসন, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর, জাতীয় মহিলা সংস্থা ও বাংলাদেশ শিশু একাডেমির আয়োজনে সার্কিট হাউস মিলনায়তনে এ সভার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান।

তিনি বলেন, আমাদের সর্ব ক্ষেত্রে নারীরা এগিয়ে আছে, স্কুলে গেলে দেখা যায় মেয়েদের সংখ্যা বেশি। বাংলাদেশে ৮ টি জেলায় ছেলেদের চেয়ে মেয়েদের সংখ্যা বেশি। আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় কিন্তু মেয়েরা এগিয়ে আসুক এটা এখনো মেনে নেয়নি। আমাদের মা যদি আমাদের শাসন না করেন তাহলে কিন্তু আমরা এগিয়ে আসতে পারিনা। একজন মা ঘরের কাজ করতে গিয়ে যে পরিমাণ হাটাহাটি করে আমার মনে হয় তা হয়তো প্রায় দশ কিঃ মিঃ হাটতে হয়। আমরা যতই সমান অধিকারের কথা বলি এটি এখনো মুখে মুখে বলছি, এটাকে বিশ্বাস করে বাস্তবায়ন করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের বেগম রোকেয়াকে ফলো করতে হবে, আমাদের দেশের উন্নয়নের জন্য নারীদের এগিয়ে আসতে হবে। যারা শিক্ষার্থী আছো তাদের বলবো তোমাদের সামনে বিশাল বড় দুনিয়া আছে। ভালো হোক খারাপ হোক সবকিছুতেই আমাদের সবার অংশগ্রহণ থাকতে হবে।

জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নাসরিন আক্তারের পরিচালনায় আরও বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পলাশ কান্তি নাথ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ইমতিয়াজ হোসেন, পৌর মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল, প্রেস ক্লাব সভাপতি গিয়াসউদ্দিন মিলন, চাঁদপুর জেলা মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান মাসুদা নুর খান।

সংক্ষিপ্ত পরিচিতি করিয়ে দেন কবিতা ইসলাম। শ্রেষ্ঠ জয়িতাদের মধ্যে অনুভুতি প্রকাশ করেন ডাঃ রওশন আরা।

বক্তারা বলেন আজ আমরা লেডি কেরানি থেকে শুরু করে জজ, ব্যারেস্টার, পুলিশ, সেনাবাহিনী, এমপি থেকে শুরু করে প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত হতে পারছি। সকল জয়িতাদের সকল পুরুষের পক্ষ থেকে স্বাগত জানান, আজ নারীরা নিজ কর্মগুনে অনেকদুর এগিয়ে যাচ্ছে। যার প্রমাণ সরুপ আজ দেখা যায় পরীক্ষার রেজাল্টে মেয়েরা এগিয়ে।

জয়িতা অম্বেষনে বাংলাদেশ’২২ শীর্ষক কার্যক্রম বাস্তবায়নে চাঁদপুর জেলা কমিটি কতৃক ৫টি ক্যাটাগরীতে ৫ জন শ্রেষ্ঠ জয়িতাকে পুরস্কৃত করা হয়। সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রেখেছেন “ডঃ রওশন আরা বেগম”। অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জন করেছেন “আয়েশা আক্তার”। নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে নতুন উদ্যমে জীবন শুরু করেছেন “শুভ্রা দেবনাথ”। সফল নারী হিসাবে পুরস্কার পেয়েছেন “আমেনা বেগম”। শিক্ষা ও চাকরি ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারি “নাজমা আক্তার”।

শেয়ার করুন: