চাঁদপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী বদলের গুঞ্জন

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

চাঁদপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী পরিবর্তন করার গুঞ্জন উঠেছে। গতকাল এই বিষয়টি ছিল “টক অব দ্যা টাউন ”। শেষ পর্যন্ত এর নির্ভরযোগ্য কোন তথ্যই মেলেনি।

সর্ব প্রথম ঢাকার অনলাইন নিউজ পোর্টালের বরাত দিয়ে সংবাদটি চাঁদপুরে আসে । পর শুরু হয় ফেসবুকে লেখা-লেখি ।

খবরটি হলো,ইতিপূর্বে ঘোষিত আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী ইউসুফ গাজীর মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ার পর সোমবার নতুন করে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন জেলা পরিষদের প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যান, সদ্য পদত্যাগী প্রশাসক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি আলহাজ্ব ওচমান গনি পাটওয়ারী।

বিষয়টি গণমাধ্যমকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়েদুল কাদের নিশ্চিত করেছেন বলেও শোনা যায়। দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী (মায়া) বীর বিক্রম ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জানা যায়।

ওবায়েদুল কাদের সোমবার সকালে গণমাধ্যমকে বলেন, “আমরা ইউসুফ গাজীর পরিবর্তে নতুন করে ওচমান গণি পাটওয়ারীকে দলীয় সমর্থন দিয়েছি।”

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী (মায়া) বীর বিক্রম বলেন, “চাঁদপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের নতুন প্রার্থী আলহাজ্ব ওচমান গনি পাটওয়ারী। দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়েদুল কাদের বিষয়টি আমাকে জানিয়েছেন।

রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান বলেছেন,এতদ সংক্রান্ত কোন খবর কিংবা ডকুমেন্ট আমার নেই। তবে অনেকেই ব্যক্তিগতভাবে আমাকে বিষয়টি জানিয়েছেন, সত্যতা জানতে চেয়েছেন।

সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ তোফায়েল হোসেন জানান, চেয়ারম্যান প্রার্থী ইউসুফ গাজী একটি মামলায় ৫ বছরের সাজাপ্রাপ্ত। এ কারণে তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ বলেন, “বিষয়টি নিয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়েদুল কাদেরের সাথে আমার কথা হয়েছে। তিনি জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশক্রমে চাঁদপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী পরিবর্তন করে আলহাজ্ব ওচমান গনি পাটওয়ারীকে দলের প্রার্থী করা হয়েছে।”

আলহাজ্ব ওচমান গণি পাটওয়ারী ২০১৬ সালের ২৯ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের চাঁদপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। সেই নির্বাচনে দলীয় সমর্থন পেয়েছিলেন সাবেক প্রশাসক লে. কর্নেল (অব.) আবু ওসমান চৌধুরী। কিন্তু তিনি নির্বাচনে অযোগ্য হওয়ায় শেষ পর্যন্ত দলীয়ভাবে কাউকে আর সমর্থন দেওয়া হয়নি। স্বতন্ত্র হিসেবে আওয়ামী লীগের ৩ জন নেতা চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেছিলেন।

গত ২৩ আগস্ট আসন্ন চাঁদপুর জেলা পরিষদের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ১৭ অক্টোবর ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে চাঁদপুর জেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

ইতিমধ্যে প্রার্থীরা তাদের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান রোববার প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে ইউসুফ গাজীর মনোনয়ন বাতিল করেন। ওই প্রার্থী চাইলে এ আদেশের বিরুদ্ধে তিন দিনের মধ্যে আপিল করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। ইউসুফ গাজীও সাংবাদিকদের আপিল করার কথা বলেছেন।

এদিকে সারাদিন চাঁদপুর শহরে একটাই আলোচনা হচ্ছিল,ইউসুফ গাজীর আপিল না টিকলে পরবর্তী সর্মথন আজহাজ্ব ওচমান গণি পেতে পারেন।

শেয়ার করুন: