চাঁদপুর পৌরসভা মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল ৩ মাসে যা’করেছেন,আগামীতে যা’করবেন

নিজস্ব প্রতিবেদক:

চাঁদপুর পৌরসভার সদ্য নবনির্বাচিত মেয়র এডভোকেট মো: জিল্লুর রহমান জুয়েল বলেছেন, গত তিন মাসে চাঁদপুর পৌরসভার অপচয় কমানো এবং আয় বৃদ্ধির পরিকল্পনা করেছি। ইতিমধ্যে ৩ কোটি টাকার আয় বৃদ্ধি এবং ১ কোটি টাকা অপচয় কমানোর পরিকল্পনা করা হয়েছে। সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চাঁদপুর পৌরসভার সদ্য নবনির্বাচিত মেয়র এডভোকেট মো: জিল্লুর রহমান জুয়েলের সাথে চাঁদপুর প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের মতবিনিময় অনুষ্ঠানে তিনি উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন। তাঁর সাথে ছিলেন, পৌরসভার সচিব মো: আবুল কালাম ভূঁইয়া, প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো: মফিজ উদ্দিন হাওলাদার।

মেয়র বলেন, এ পৌরসভার ৫৭ কোটি টাকার দেনা কাঁধে নিয়ে আমি পৌরসভার দায়িত্ব গ্রহন করে ছিলাম। গত তিন মাসে সাড়ে ৮ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, চাঁদপুর পৌর এলাকায় নান্দনিক নির্ভর পর্যটন কেন্দ্র গড়ার চেস্টা চলছে। প্রয়োজনে অতিরিক্ত লোকজনের কারনে বেতনের উপর প্রভাব পড়ছে। পৌরসভার আওতাধীন বিদ্যুতের মিটার ছিল ৮০টি। যা ছিল প্রয়োজনের চাইতে বেশী। আমি দায়িত্ব পালন কালে ৪২ টি মিটারের বকেয়া পরিশোধ করে বন্ধ করে দিয়েছি। এতে সিস্টেস লস্ কিছুটা হলেও বন্ধ হয়েছে। এখন চলমান রয়েছে,৩৮টি মিটার।

পৌরসভার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব ভার গ্রহণের ৩মাস অতিবাহিত হওয়ায় তিনি উন্নয়ন ও আগামীদিনের কর্মপরিকল্পনা নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় বিস্তারিত তুলে ধরেন।

তিনি আরো বলেন, আমি চাঁদপুর পৌরসভার দায়িত্ব নেওয়ার পর গত ৩ মাসে নিয়মিত কর্মচারীদের নিয়মিত বেতন দেয়া হচ্ছে।অতীতের বকেয়া বেতন এক বছরের মধ্যে পরিশোধ করা হবে। পরিচ্ছন্ন কর্মীরা এখন থেকে ব্যাংকের মাধ্যমে বেতন গ্রহন করবে।এতে ব্যাংককে কোন সার্ভিস চার্জ দিতে হবে। পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের জন্য শহরের স্বর্ণখোলায় বহুতল ভবন করে সকলকে একটি করে ফ্লাট দেওয়া হবে।জাতীয়তা ও জন্মনিবদ্ধনসহ সকল সনদ এখন থেকে অনলাইনে পাওয়া যাবে।

তিনি বলেন,১২৫ বছরে ঐহিত্যবাহী চাঁদপুর পৌরসভায় কোন কনফারেন্স রুম ছিল না, আমার তিনমাসের কার্যকালে একটি আধুনিক কনফারেন্স রুম করতে পেরেছি। নকশা বহির্ভূত ভবন আর পৌরসভায় গড়তে দেওয়া হবে না। পৌর এলাকায় বিল বোড স্থাপনে অনুমোদন রয়েছে,১০বাই ২০ফুট। অথচ তারা বানিয়েছে ২০বাই ৪০ ফুট। এ ছাড়া অনুমোদন রয়েছে ৫টি ব্যবহার করছে ১০টি।এখন থেকে পৌরসভায় নাগরিক সেবা নিশ্চিতে কাউকে অফিসের রুমে-রুমে যেতে হবে না। সহসাই ওয়ানস্টপ সার্ভিস চালু করা হবে।

তিনি বলেন , যানবাহনের তেলের খরচ ইতিমধ্যে অর্ধেকে নামিয়ে এনেছি। পানি শাখার কর্মচারীদের মাধ্যমে রিপেয়ারিং এর কাজ করছি। অতীতে তা ঠিকাদার দিয়ে করা হতো। পানি শাখা থেকে আমাদের আয় বিগত দিনে হয়নি। তাতে খরচ অনেক বেশী ছিল। পানি শাখার মাধ্যমে মাত্র তিন মাসে ১৫টি ওয়ার্ডে ৭৮৬টি অবৈধ সংযোগে ২৬ হাজার পরিবার অবৈধভাবে পানি ব্যবহার করতো এদেরকে বৈধ করার কাজ চলছে। ভর্তুকি কমাতে সহসাই পানির বিলের মূল্য বাড়ানো চিন্তা ভাবনা চলছে। পৌরসভার ৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে সরকারি করার চেষ্টা চলছে। তাতে অনেক খরচ কমে যাবে।
চাঁদপুরে প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটওয়ারীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভাটি পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশা। বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি কাজী শাহাদাত,অধ্যক্ষ মো: জালাল চৌধুরী, শরীফ চৌধুরী,শহীদ পাটওয়ারী,গিয়াসউদ্দিন মিলন,সহ-সভাপতি মো:সোহেল রুশদী,সাবেক সাধারণ সম্পাদক এএইচএম আহসান উল্লাহ্, লক্ষন চন্দ্র সূত্রধর,শওকত আলী,টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আল-ইমরান শোভন, সাধারণ সম্পাদক মো: রিয়াদ ফেরদৌস,যুগ্ন্ সম্পাদক মো: আবদুল আউয়াল রুবেল, নির্বাহী সদস্য মো: মনির চৌধুরী, দৈনিক আলোকিত চাঁদপুর পত্রিকার সম্পাদক মো: জাকির হোসেন,ফটো জানালিস্ট এসোসিয়েসনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো: তালহা জুবায়ের,, ফটো জানালিস্ট এসোসিয়েসনের সাবেক সভাপতি একে আজাদ,কেএম মাসুদ প্রমুখ।

সাংবাদকদের বিভিন্ন প্রশ্ন উত্তরে মেয়র বলেন, চাঁদপুর শহরের ২টি লেককে সংস্কার হবে। শহরকে নান্দনিক রুপ দেওয়া হবে। শহরের ছায়াবানী এলাকায় অবস্থিত ময়লা-আবর্জনা রাখার স্থানটি (অন্যন্যনা মার্কেট এলাকায়) আগামী ২মাসের মধ্যে ররিয়ে ফেলা হবে। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি অঙ্গিকারসহ সকল স্থাপনা সংস্কার করা হবে। বিপনীবাগ বাজারটি সঠিক জায়গায় স্থাপন করা হবে। যারা টেক্স ফাঁকি দিচেছ,তাদেরকে টেক্য অবশ্যই দিতে হবে। শহরের কোটস্টেশন এলাকায় পাবলিক টয়লেট স্থাপন করা হবে। জায়গা নির্ধারনের কাজ চলছে। অবৈধ লাইসেন্স বিহীন সিএনজি ও অটোবাইককে শহরে ঢুকতে দেওয়া হবেনা। পানির লাইন ও ড্রেন যেখানে হবেনা,সেখানে কোন পাকা রাস্তা করা হবেনা। শেেহর সড়ক গুলো সংস্কার কাজ অতিদ্রুত করা হবে। সব শেষ তিনি সততার সাথে ভাল কিছু করার চেস্টা করনো বলে পৌবাসীরদের প্রতি আশ্বাস প্রদান করেন।

Recommended For You

About the Author: News Room

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *