চাঁদপুর সরকারি কলেজে ‘ক্লিন ক্যাম্পাস, গ্রিন ক্যাম্পাস’ কর্মসূচির উদ্বোধন

মেঘনা পাড়ের বাতিঘর বলে খ্যাত চাঁদপুর সরকারি কলেজে ১২ ডিসেম্বর শনিবার সকাল নয়টায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র অ্যাড. জিল্লুর রহমান জুয়েল ‘ক্লিন ক্যাম্পাস, গ্রিন ক্যাম্পাস’ কর্মসূচির (১২-১৪ ডিসেম্বর) উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর অসিত বরণ দাশের সভাপতিত্বে উদ্বোধন পর্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ মাসুদুর রহমান, পুরান বাজার ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ রতন কুমার মজুমদার, বাবুরহাট উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ মোশারেফ হোসেন এবং বিসিএস (অডিট এবং নিরীক্ষা) ক্যাডার কর্মকর্তা এ এস এম সোহরাব হোসেন। অধ্যক্ষ প্রফেসর অসিত বরণ দাশ বলেন,‘এই কলেজের অনেক গৌরবোজ্জ্বল দিক রয়েছে। আবার কিছু কিছু দুর্বল দিকও রয়ে গেছে। আমাদের বর্জ্য নিষ্কাশন ব্যবস্থা দুর্বল ছিল। দীর্ঘ ৭৪ বছরের কলেজের বর্জ্য পদার্থগুলো কলেজের মধ্যেই জমা করা হয়েছে। চাঁদপুর জেলার প্রাচীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে চাঁদপুর পৌরসভার মেয়রের সার্বিক সহযোগিতায় আজ থেকে শুরু হল এই দীর্ঘ দিনের বর্জ্য নিষ্কাশন কর্মসূচি। কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মানসম্মত শিক্ষার অন্যতম মানদন্ড হল সুন্দর পরিবেশ।’

তিনি এই কার্যক্রমের সাথে সংযুক্ত হওয়ায় চাঁদপুর পৌরসভাসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান। অন্যান্য বক্তাগণও মানসম্মত শিক্ষার জন্য প্রয়োজন সুন্দর ক্যাম্পাস বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পৌর মেয়র অ্যাড.জিল্লুর রহমান জুয়েল বলেন,‘আমার নির্বাচনী অঙ্গিকারই ছিল, চাঁদপুর শহরটাকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা। শুধু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানই নয়, যে কোন প্রতিষ্ঠানের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা এবং সৌন্দর্যবৃদ্ধিতে চাঁদপুর পৌরসভা সবসময় আপনাদের পাশে থাকবে।’

তিনি চাঁদপুর সরকারি কলেজের এই পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। নান্দনিক চাঁদপুর, পর্যটন নির্ভর চাঁদপুর গঠনে তিনি পৌরবাসীর সহযোগিতা কামনা করেন।

এসময় শিক্ষামন্ত্রী ডা.দীপু মনি এমপি এর রোগমুক্তি ও সুস্থতার জন্য পৌর মেয়র সকলের কাছে দোয়া কামনা করেন।

শিক্ষক পরিষদ সম্পাদক ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক কিউ এম হাছান শাহরিয়ার এর সঞ্চালনায় বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষকবৃন্দ, কলেজের কর্মচারীগণ, চাঁদপুর পৌরসভার বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং পৌরসভার পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কর্মীগণ এ সময় ক্লিন ক্যাম্পাস, গ্রিন ক্যাম্পাস কার্মসূচিতে অংশ গ্রহণ করেন।

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *