জুয়ার টাকার যোগান দিতেই দুই কর্মচারি খুন করেছে অমর-কে :পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥

কর্মচারির হাতেই খুন হয়েছে মতলবের আলোচিত স্বর্ণ ব্যবসায়ী অমর ভক্ত প্রকাশ অমর সরকার। জুয়াখেলায় ঋণগ্রস্ত টাকা পরিশোধের জন্য ব্যবসায়ীর দুই বিশ্বস্ত কর্মচারী অনিক এবং হৃদয় তাকে খুন করে । তারা জুয়ার টাকার জন্যই ব্যবসায়ী অমর সরকারকে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ধারালো অস্ত্র নিয়ে হত্যা করে। এর আগেও অমর সরকারকে হত্যা করে স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা হাতিঢে নেয়ার চেষ্টার করেছিল। কিন্তু সুযোগ না হওয়ায় এবার নতুন করে পরিকল্পনা করে।

পুলিশ সুপার বলেন, মাত্র ২৪ ঘন্টার মধ্যে চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকান্ডের মূল আসামিদের আমরা করেছি ।

ঘটনার বিবরণীতে পুলিশ সুপার আরো জানান, অমর সরকার একজন স্বর্ণ ব্যবসায়ী। তার পিতা শ্রী রবি ভক্ত। তার বাড়ি মতলব দক্ষিণের সারপাড় গ্রামে। মতলবের নারায়নপুর বাজার মাধবী শিল্পালয় নামে একটি জুয়েলারি দোকানের মালিক অমর। তিনি প্রায় ব্যবসার কাজ শেষ করে রাত ৯টা হতে ১০টার মধ্যেই বাড়ি ফেরেন। ২১ ফেব্রুয়ারি অমর সরকার প্রতিদিনের ন্যায় ব্যবসায়িক কাজে মতলব আসায় বাড়ি ফিরতে অনেকটাই দেরি হয়।

তিনি বলেন, প্রতিদিনের ন্যায় অমর তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মাধবী শিল্পালয় বন্ধ করে দিনশেষে নগদ ১৮,২০০ টাকা ও প্রায় ৪০ ভরি স্বর্ণালংকার (যার বর্তমান মূল্য ৩০ লক্ষ টাকা) নিয়ে রাত সাড়ে ১২টার সময় তার দোকানের বর্তমান কর্মচারী জয় বিশ্বাস প্রকাশ অনিক (২২)সহ বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হয়। তার বাড়ির সামনে পৌঁছামাত্র তার দোকানের পূর্বেকার কর্মচারী হৃদয় সূত্রধর (২২) এবং বর্তমান কর্মচারী অনিক তাকে পিছন থেকে জাপ্টে ধরে গলা কেটে হত্যা করে এবং স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

এ সময় পূর্বকার কর্মচারী হৃদয় সূত্রধর স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ টাকা নিয়ে অন্যত্র চলে যায় এবং বর্তমান কর্মচারী অনিক অজ্ঞান হওয়ার অভিনয় করে অজ্ঞান হয়ে যায়। কিছুক্ষণ পর অর্থাৎ রাত আড়াইটার সময় অনিক অভিনয়কৃত জ্ঞান ফিরে আসার পর স্বর্ণ ব্যবসায়ী অমর সরকারের বাসায় এসে অমরের পিতা শ্রী রবি ভক্তের কাছে অমরের গলাকাটা লাশের কথা জানায়। কে বা কারা অমরের গলা কেটেছে তা দেখতে পায়নি বলে জানায়।

মতলব দক্ষিণে স্বর্ণ ব্যবসায়ী অমর সরকার হত্যাকান্ডের ২৪ ঘন্টার মধ্যে মূল দুই আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। এ সময় লুণ্ঠিত ৪০ ভরি স্বর্ণ এবং নগদ ১৮ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ধারালো অস্ত্র জব্দ করা হয়।

এই নিয়ে বৃহস্পতিবার (২৪ ফেব্রুযারি) বেলা ১১টায় চাঁদপুর পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ সংবাদ সম্মেলন করে স্বর্ণ ব্যবসায়ী অমর সরকার হত্যাকান্ডের বিস্তারিত তুলে ধরেন।

সংবাদ সম্মেলন উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) সুদীপ্ত রায়, মতলব সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার ইয়াসির আরাফাত, মতলব দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহিউদ্দিন মিয়া, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মফিজুল ইসলাম খান এবং মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (উপ-পরিদর্শক) হাবিবুর রহমান প্রমুখ।

এদিকে পুলিশ ঘটনার বিবরণী জয় বিশ্বাস প্রকাশ অনিকের মুখে ঘটনার বিবরণী শুনতে পেয়ে গভীর ও নিবিড়ভাবে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে খুনের সাথে জয় বিশ্বাসের সম্পৃক্ততা বুঝতে পেরে তাকে আটক করা হয়। পুলিশ সুপারের নির্দেশে জয় বিশ্বোসকে তাৎক্ষণিক আদালতে সমার্পন করা হয়। জয় বিশ^াস আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধি ১৬৪ ধারায় আদালতে স্বীকারোক্তি প্রদান করেন এবং এই খুনের সাথে সম্পৃক্ত অমর সরকারের মাধবী শিল্পালয় দোকানের পূর্বেকার কর্মচারী হৃদয় সূত্রধরের কথা জানায়। আদালত অনিককে ঐদিনই আদালতে প্রেরণ করে।জয় বিশ্বাসের বাড়ি মুন্সিগঞ্জের লোহজং থানার শুভরিয়া গ্রামে। তার বাবার নাম অর্জুন বিশ্বাস।

এদিকে জয় বিশ্বাস প্রকাশ অনিকের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী পুলিশ পূর্বেকার কর্মচারী হৃদয় সূত্রধরকে ২৩ ফেব্রুয়ারি রাতে মতলব থেকে আটক করে।

হৃদয় সূত্রধরের কথা মতে পুলিশ অমর সরকারের বাড়ির প্রায় ২ কিলিমিটার দূর থেকে মাটির নিচে লুকায়িত ৪০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, নগদ ১৮,২০০ টাকা উদ্ধার করে। মতলব বাজারের ডাস্টবিন থেকে রক্তমাখা হ্যান্ডগ্লাভস ও ২টি কাপড়ের হ্যান্ডব্যাগ উদ্ধার করে। এছাড়া ঐ রাতেই পুকুরে ফেলা দেয়া হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ধারালো ছুরি ডুবুরিদের সহায়তায় উদ্ধার করা হয়।

শেয়ার করুন: