টাঙ্গাইল জেলা কালচারাল অফিসারকে হত্যার প্রতিবাদে চাঁদপুরে স্মারকলিপি প্রদান

স্টাফ রিপোর্টার :

টাঙ্গাইল জেলা শিল্পকলা একাডেমি’র জেলা কালচারাল অফিসার খন্দকার রেদওয়ানা ইসলামকে হত্যার প্রতিবাদে চাঁদপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি উদ্যোগে সাংস্কৃতিক শিল্পীদের মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে।

৩১ মার্চ বুধবার সকাল ১১টায় জেএম সেনগুপ্ত রোডস্থ জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মুখে মানববন্ধন শেষে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর বিকেল সাড়ে ৪টায় চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, চাঁদপুর জেলা শাখা’র সভাপাতি তপন সরকার, জেলা শিল্পকলা একাডেমি’র নির্বাহী সদস্য শহীদ পাটোয়ারী ও কণ্ঠশিল্পী রূপালী চম্পক,প্রবীণ কণ্ঠশিল্পী ইতু চক্রবর্তী, মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার মহাসচিব হারুন আল রশিদ, বর্ণচোরা নাট্যগোষ্ঠী’র সাধারণ সম্পাদক শরীফ চৌধুরী,শিল্পচূড়া,চাঁদপুর-এর সভাপতি মাহবুব সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক লিটন ভূঁইয়া,স্বরলিপি নাট্যদলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এম আর ইসলাম বাবু, মেঘনা থিয়েটারের সভাপতি তবিবুর রহমান রিংকু,অনন্যা নাট্যগোষ্ঠী’র সাধারণ সম্পাদক মৃণাল সরকার,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ আলমগীর ও মানিক দাস,বঙ্গবন্ধু আবৃত্তি পরিষদের উপদেষ্টা ডাঃ পীযুষ কান্তি বড়–য়া ও সভাপতি মুক্তা পীযুষ,উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী’র অন্যতম কর্মকর্তা জাকির মিয়াজী ও সাধারণ সম্পাদক জহির উদ্দিন বাবর, মুক্তিযোদ্ধা মোহন বাঁশি স্মৃতিসংসদের সভাপতি অজিত দত্ত, চাঁদপুর ড্রামার সহ-সভাপতি একে আজাদ ও নজরুল ইসলাম রণি, নাট্যশিল্পী পলাশ মজুমদার, জেলা শিল্পকলা একাডেমির প্রশিক্ষক পরিমল দাস নুপুর, নৃত্যধারার অধ্যক্ষ সোমা দত্ত, জেলা শিল্পকলা একাডেমির অফিস সহকারী মাসুদ দেওয়ান প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত ২৭ মার্চ টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুরের কুমুদিনী হাসপাতালের কেবিনে নির্মমভাবে হত্যার শিকার হন টাঙ্গাইল জেলা শিল্পকলা একাডেমি’র কালচারাল অফিসার খন্দকার রেদওয়ানা ইসলাম। এর পূর্বে ২২ মার্চ তিনি কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়ে ওই হাসপাতালের ১১নং কেবিন অবস্থান করছিলেন।

এ নির্মম হত্যাকা-ের পর তার স্বামী মোঃ দেলোয়ার হোসেন মিজান (যিনি স্যোসাল ইসলামী ব্যাংকের ভোলা মহাজন পট্টি শাখায় কর্মরত) গা ঢাকা দিয়েছেন। ধারনা করা হচ্ছে পারিবারিক কোলহের কারনে তার স্বামী দেলোয়ার হোসেন মিজান এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এ হত্যার প্রতিবাদে সারদেশের ন্যায় চাঁদপুরেও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে প্রতিবাদের ঝড় তুলে। পৃথিবীতে জন্ম নেয়া তার একমাত্র ৫ দিনের শিশু এখন মা হারা হয়ে গেলো।

সে জন্য বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক কর্মীদের দাবি,অপরাধীকে যেনো দ্রুত আইনের আওতায় এনে কঠিনতম শাস্তির ব্যবস্থা করা হয়। যেনো ভবিষ্যতে এমন জঘন্য হত্যাকা- কেউ না ঘটাতে পারে। এ হত্যাকা-ের প্রতিবাদে বাংলাদেশের ৬৪ জেলায় একযোগে মানববন্ধন ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবরে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে।

Recommended For You

About the Author: News Room

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *