নারীর অবদানকে খাটো করে দেখার সুযোগ নেই : শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, রাজপথে নারীরা অধিকার আদায়ে অনেক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন, তবুও রাজপথ ছাড়েনি। নারীর অবদানকে খাটো করে দেখার সুযোগ নেই। ২০০৮ সালে নির্বাচনে নারীদের ব্যাপক ভূমিকা ছিল। সারাদেশের যুব মহিলা নেত্রীদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

বুধবার (৬ জুলাই) রাতে বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগের ২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে চাঁদপুরে আলোচনা সভা, দোয়া ও কেককাটা অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে নারীরা এগিয়ে এসেছে। এমন কোনো সেক্টর নেই যেখানে নারী নেই। একজন পুরুষ শিক্ষিত হলে সে শুধু একজনকেই শিক্ষিত করে। আর একজন নারী শিক্ষিত করলে সে পুরো পরিবারকে শিক্ষিত করে।

তিনি আরও বলেন, আজকে মহিলা ও যুব মহিলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে নারীরা সর্বক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধেও নারীদের অবদান কম নয়। তারা দেশের ক্রান্তিলগ্নে কাজ করেছেন এবং করছেন। শেখ হাসিনা সরকার নারীদের মূল্যায়ন করেন। তাই নারীরা নেই এমন কোনো ক্ষেত্র বর্তমান সময়ে নেই। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে নারীদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যুব মহিলা লীগ বাংলাদেশে এমন একটা সময় প্রতিষ্ঠা হয়েছিল, যখন দেশে দুঃশাসন চেপে বসেছিল মানুষের বুকের ওপর। নারীরা চরমভাবে নির্যাতিত হয়েছিল। সেই সময় রাজনৈতিক প্রয়োজনে নারীদেরকে সঙ্ঘবদ্ধ করে যুব মহিলা লীগ।

জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি ফরিদা ইলিয়াস ও সাধারণ সম্পাদক ফারহানা জাফর রুমা এবং সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমা আলমের যৌথ পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ইউসুফ গাজী, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তাফাজ্জল হোসেন এসডু পাটওয়ারী, শিক্ষা ও মানব সম্পদ বিষয়ক সম্পাদক ও পৌর মেয়র জিল্লুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. মজিবুর রহমান ভূইয়া, জেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক মাহফুজুর রহমান টুটুল ভুইয়া, উপ-দপ্তর সম্পাদক অ্যাড. রঞ্জিত রায় চৌধুরী, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক অধ্যাপিকা মাসুদা নুর খান, জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক ফারহানা জাফর রুমা পাটওয়ারী প্রমুখ।

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published.