প্রজন্মেকে ভেজালমুক্ত খাদ্য গ্রহণের পরিবেশ তৈরি করতে হবে :খাদ্য সচিব

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: ইসমাইল হোসেন এনডিসি বলেছেন,আগামী বছর ২০২৩ সাল খাদ্য নিরাপত্তার জন্য হুমকি স্বরূপ। তাই আমাদের খাদ্য অবচয় বন্ধ করতে হবে। ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খাদ্য সচেতনতার বিষয়ে নির্দেশ প্রদান করেছেন। আমাদের ১৫ লক্ষ মে.টনের উপরে খাদ্য মজুদ রয়েছে। তবে আমাদের দেশে সংকট হওয়ার কোন সম্ভাবনা নেই।

বৃহস্পতিবার দুপুরে চাঁদপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে খাদ্য নিরাপত্তা বিষয়ক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি গিয়াসউদ্দিন মিলনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক রিয়াদ ফেরদৌস এর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান ও চাঁদপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ওচমান গনি পাটওয়ারী।

খাদ্য সচিব বলেন,জ্ঞানময় ও ভেজালমুক্ত খাদ্য গ্রহণ করতে হবে। আগামী প্রজন্মের জন্য ভেজালমুক্ত খাদ্য গ্রহণের পরিবেশ তৈরি করতে হবে। শিঘ্রই খাদ্য মন্ত্রনালয় পারিবারিক খাদ্য নির্দেশিকা তৈরি করতে যাচ্ছে। খাদ্য নির্দেশিকায় কোন খাবার কতটুকু খাবেন, তা সেখানে উল্লেখ থাকবে। আগামী ২০২৩ সাল খাদ্য নিরাপত্তার জন্য হুমকি সরূপ। তাই আমরা মনে করছি খাদ্য ঘাটতি হতে পারে। বেসরকারিভাবে চালের আমদানি করে জন্য ব্যবসায়ীদের অনুমতি দিয়েছি। এতে ভ্যাট ও ট্যাক্স কমিয়ে দিয়েছি।

তিনি বলেন, সারাদেশের ওএমএস ডিলারের মাধ্যমে আমরা খাদ্য জনগণকে দিয়ে থাকি। এছাড়া খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর আওতায় ৫০ লক্ষ লোককে ৩০ কেজি করে চাল দিচ্ছে সরকার। এখানে অনেক টাকা ভর্তুকি দেয়া হয়। আমরা যে খাবার অবচয় করি তা পৃথিবীর অন্য কোন দেশ করে না। আমরা যে পরিমান খেতে পারবো, সেই পরিমান রান্না করবো। আমাদেরকে ব্যালেন্স খাবার গ্রহণ করতে হবে। আমাদের প্রতিদিন ১৮০ থেকে ২০০ গ্রাম খাবার গ্রহণ করা দরকার। আর আমরা তা গ্রহণ করছি ৪০০ গ্রাম বা দ্বিগুন। অতিরিক্ত খাবার গ্রহণে ডায়াবেটিস, লিভার নষ্টসহ আমাদের নানা ধরণের রোগ হচ্ছে। আসুন স্বাস্থ্য সচেতনতার বিষয়ে আমরা সোচ্চার হই।

সাংবাদিকদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশা, সোহেল রুশদী, সিনিয়র সাংবাদিক দেলওয়ার হোসেন, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহাদাত হোসেন শান্ত, দৈনিক মতলবের আলো পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কে এম মাসুদ।

এসময় চাঁদপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজী মোঃ মেশকাতুল ইসলাম, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি কাজী শাহাদাত, শহীদ পাটওয়ারী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এএইচএম আহসান উল্লাহসহ বিভিন্ন মিডিয়ায় কর্মরত গনমাধ্যম কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন: