প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে ॥ ২৯ ছাগলের মত্যে ১৪টি মারার ঘটনা সত্য

আক্তার হোসেন॥

মতলব দক্ষিণ উপজেলায় নিবন্ধিত জেলেদের মাঝে বিকল্প কর্মসূচির আওতায় বিতরণকৃত ২৯ টি ছাগলের মধ্যে ১৪টি মারা গেছে। এ নিয়ে দৈনিক মেঘনা বার্তাসহ স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নজরে এলে তিনি তদন্তের ব্যবস্থা নেন ও তদন্তে সত্যতা পাওয়া যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদা হক তাৎক্ষনিকভাবে সহকারী কমিশনার (ভূমি) সেটু কুমার বড়–য়া ও উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মুহাম্মদ জাকির হোসনকে বিষয়টি সরজমিনে তদন্ত করার জন্য নির্দেশনা দেন। বিতরণকৃত ছাগলগুলোর বয়স-ওজন-দাম কম পাওয়া গেছে। ছাগলগুলো রোগাক্রান্ত ও অপরিপক্ক বলে প্রাথমিক তদন্তে উঠে এসেছে। এছাড়াও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিক জামাল হোসেন সঠিকভাবে ছাগল সরবরাহ করেনি। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সাখাওয়াত হোসেন যাচাই বাছাই না করে ছাগল বিতরণ করায় তাঁরও দায়িত্ব অবহেলা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদ হক বলে, প্রাথমিক ভাবে তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেছে। এছাড়া ৩০দিনের মধ্যে বিতরণকৃত ছাগলের কোন সমস্যা হলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ছাগলসহ উপকরণ দিতে বাধ্য থাকিবে। সেজন্য ঠিকাদার পুনরায় ছাগল সরবরাহ করবেন। তদন্ত কমিটি গঠন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, মতলব দক্ষিণ উপজেলায় জেলেদের বিকল্প কর্মসূচি হিসেবে ৬০ টি ছাগল বিতরনের বরাদ্দ আসে। সেক্ষেত্রে গত ২৬ জানুয়ারি নিবন্ধনকৃত ১৬ জন জেলের মাঝে মোট ২৯ টি ছাগল প্রদান করা হয়। তন্মধ্যে ১৪টি ছাগল ২০ দিনের মধ্যে মারা গেছে।

শেয়ার করুন: