ফরিদগঞ্জে ছুরিকাঘাতে শ্যালককে হত্যা, দুলাভাই আটক

ফরিদগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জেরে আপন ভগ্নিপতি কর্তৃক সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক কামরুল হাসান রতন (৩৭) কে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে। রক্তাক্ত অবস্থায় যুবলীগ নেতাকে হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ওই সময়ে বাাঁধা দিতে গেলে মনির (৩৮) ও জসিম (৫৫) গুরুতর আহত হন।

তাদেরকে উদ্ধার করে নিকটবর্তী হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন।

১৯ এপ্রিল মঙ্গলবার বাদ আসর ৩নং সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়নের দিগদাইর সর্দার বাড়ীর দোকানের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

এ দিকে হত্যা কান্ডের ঘটনায় পুলিশ তাৎক্ষণিক ঘাতক সাহাদাত হোসেনকে আটক করেছে।

হাসপাতালে আসা নিহত রতনের ভাই দিগদাইর হাটখোলা বাড়ীর ফারুক হোসেন বলেন, আমার বোন আঞ্জুমা বেগমের স্বামী ভগ্নিপতি একই গ্রামের মৃত আলী আহমেদের ছেলে শাহাদাত হোসেন (৫০) রতনকে ছুরিকাঘাতে করে হত্যা করে।

নিহতের বোন আঞ্জুমা বেগম বলেন, আমার স্বামী শাহাদাত হোসেন ঢাকার ব্যবসায়ী এবং পূর্ব বিরোধকে কেন্দ্র করে এ হামলা চালায়। এদিকে হামলাকারী কাউকে এলাকায় গিয়ে পাওয়া যায়নি।

ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শহীদ হোসেন জানান, হত্যা কান্ডের ঘটনায় আমরা তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে মুল আসামিকে আটক করেছি এবং তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধিন রয়েছে ।

এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ জোবাইর সৈয়দ বলেন, আমরা হাসপাতাল থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর মর্গে প্রেরন করেছি।

চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) সুদীপ্ত রায় বলেন, ঘটনার পরপরই উত্তেজিত এলাকাবাসী অভিযুক্তকে আটক করে। এমন সংবাদ পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল) সোহেল মাহমুদসহ একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে রতনকে আটক করে থানা নিয়ে যায়।

এদিকে চাঁদপুর থেকে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ নিহতের পরিবারের নিকট লাশ হস্তান্তর করবে।

উল্লেখ্য: হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত সাহাদাত মাদক কারবারী ও সেবী হিসেবে নানাজন দাবী রয়েছে।

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published.