ফরিদগঞ্জে যুবককে পিটিয়ে হত্যা : পুলিশের হাতে আটক ২

ফরিদগঞ্জে এক যুবককে পিটিয়ে মারার ঘটনা ঘটেছে। লোমহর্ষক ও নৃশংসতম এ ঘটনাটি ঘটে উপজেলার বালিথুবা গ্রামে। গ্রামের দু’ চোরের সালিসকে কেন্দ্র করে সালিস মো. হানিফ তপাদার (৩৫) কে বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই ) সকাল ১০টায় পিটিয়ে হত্যা করে তারই আপন চাচাতো ও ফুফাতো ভাই।

এ ঘটনার মূলহোতা দু’জনকে পুলিশ আটক করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে বালিথুবা তপাদার বাড়ির উঠোনে। সকালে ঘটনাটি ঘটলেও হানিফ তপাদারকে দুপুর ২ টায় চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কর্মরত চিকিৎসক ডা. মো. মিজানুর রহমান তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় ৬ জনকে আসামী করে ফরিদগঞ্জ থানায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও নিহতের আত্মীয় আহসান উল্লাহ্ তালুকদার জানান, ফরিদগঞ্জ উপজেলার বালিথুবা এলাকার চিহ্নিত মোটরসাইকেল চোর আরিফ হোসেন (২৫) ও মামুন মিয়া (২৮) দীর্ঘদিন যাবৎ বিভিন্ন স্থানে মোটরসাইকেল চুরি করে আসছিলো।

তারা এলাকায় চিহ্নিত চোর হিসেবে সকলে জানে। এক পর্যায়ে অতিষ্ঠ হয়ে চোর আরিফ ও মামুনের বিষয়ে হানিফ তপাদারসহ এলাকাবাসী কিছুদিন আগে সালিস করে। এ নিয়ে হানিফ তপাদারের সাথে মামুন ও আরিফের বেশ ক’বার ঝগড়া হয়।

এলাকাবাসী জানায়, মোটরসাইকেল চোর চক্রের অন্য সদস্যরা হানিফকে নিয়ে এলাকায় কোনো সালিস না করার জন্যে হুঁশিয়ার করে দেয়। রোববার আরিফ ও মামুনের বিষয়ে এলাকায় সালিস বসে। যেখানে হানিফ তপাদারও ছিলো। এরই জের ধরে ক্ষিপ্ত হয়ে বৃহস্পতিবার হানিফ তপাদারকে বাড়িতে একা পেয়ে চোর আরিফ ও মামুন হানিফকে ডেকে বাড়ির উঠানে এনে এলাকার একদল চোরসহ দেশীয় অস্ত্র দিয়ে তার মাথা ও শরীরে উপর্যুপরি আঘাত করে রক্তাক্ত অবস্থায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

পরে এলাকাবাসী মুমূর্ষু অবস্থায় হানিফ তপাদারকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে আনা হলে কর্মরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের ডা. মিজানুর রহমান জানান, নিহত হানিফের মাথায় প্রচুর রক্তক্ষরণের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্যে মর্গে প্রেরণ করেছে।

এ ব্যাপারে ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রাকিব জানান, এ ঘটনায় চোর আরিফ হোসেন ও মামুন মিয়াকে আটক করা হয়েছে। মামলা প্রক্রিয়াধীন। হানিফ তপাদার নামে যুবককে পিটিয়ে হত্যার ঘটনার সত্যতা তিনি স্বীকার করেছেন। তিনি জানান, এ ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে। বাকি আসামীদেরও আটক করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *