ফরিদগঞ্জ চান্দ্রা দরবার শরীফে মুজাদ্দেদীয়া কমিটির কেন্দ্রিয় কাউন্সিল সম্পন্ন

স্টাফ রিপোর্টার:

ফরিদগঞ্জ উপজেলাধীন খানকায়ে এনায়েতীয়া সাইফিয়া নক্শবন্দীয়া মুজাদ্দেদীয়া চান্দ্রা দরবার শরীফের প্রতিষ্ঠাতা আল্লামা শাহ মাও. সাইয়্যেদ মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ নবন্দী মুজাদ্দেদী (রা.) এর প্রতিষ্ঠিত তাসাউফ ভিত্তিক সংগঠন ‘আঞ্জুমানে এশায়াতে ছাইফীয়া মুজাদ্দেদীয়া বাংলাদেশ’ এর মাধ্যমে সারাবিশ্বে ত্বরিকত জগতের প্রসিদ্ধ ত্বরিকা, ত্বরিকায়ে আলীয়া নক্শবন্দীয়া মুজাদ্দেদীয়ার খেদমত আঞ্জাম দেওয়ার জন্য প্রতিষ্ঠা করেন।

গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় সংগঠনের কেন্দ্রিয় কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের আমীরে আলা পীরে তরীক্বত, চান্দ্রা দরবার শরীফের পীর সাহেব আল্লামাহ ড. এস এম হুজ্জাতুল্লাহ নক্শবন্দী মুজাদ্দেদী।

তিনি তার বক্তব্যে বলেন, মানুষের হেদায়েতের জন্য মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন যুগে যুগে নবী-রাসুলদের পাঠিয়েছেন। আখেরী নবী হযরত মুহাম্মদ (দঃ) এর জাহেরী জিন্দেগী থেকে পর্দা করার পর তাঁর নির্বাচিত উম্মতদের মধ্য হতে যুগে যুগে তার ওয়ারিশ হক্কানী-রব্বানী আউলিয়া কেরামদেরকে পাঠিয়ে মানুষদেরকে আল্লাহ এবং তার রাসুল (দ.) এর অনুসরণ অনুকরণের জন্য হেদায়েতের পথ দেখিয়েছেন। মহান আউলিয়া কেরামগণের থেকে সাধারণ মানুষ কামেল ইনসানে পরিণত হয়েছে এবং নিজ সমাজ-রাষ্ট্র ইসলামী আলোয় আলোকিত করেছে। সেই সিলসিলাহ যুগ-যুগ ধরে বহমান নদীর মতো প্রবাহিত হয়েছে। নদী যেমন দু’কূলের মানুষ জন, গাছ-পালা, তরু-লতা, জীব-জন্তু, পশু-পাখি এক কথায় সকলের জন্য উপকারী হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে। ঠিক তেমনি আল্লাহর অলীগণও যে এলাকায় প্রকাশ হয়েছে শুধু সে এলাকা নয় আউলিয়াগণের স্তর অনুসারে তাদের দ্বারা কখনও পুরো জগৎ উপকৃত হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, একজন মহান অলী আমাদের মাঝে আল্লাহ-রাব্বুল আলামীন মেহেরবাণী করে পাঠিয়েছেন। যিনি আমাদের মহন মোর্শেদ চান্দ্রার হুজুর কেবলা সৈয়দ মো. ছাইফুল্লাহ নকশবন্দী রহঃ। যার সোহবতে লক্ষ লক্ষ পথহারা আল্লাহর বান্দা রাসুলের (দঃ) মহব্বতের উম্মত সঠিকভাবে ঈমান-ইসলাম বুঝে সঠিক পথ পেয়ে কামেলে ইনসান হওয়ার সৌভাগ্য লাভে ধন্য হয়েছে। অত্যন্ত দুঃখের এবং বেদনার ব্যাপার গত ২০১৬ সালের ৩ আগস্ট তিনি আমাদের মাঝ থেকে বিদায় নিয়েছেন। তিনি জীবিত থাক অবস্থায় সকল মুরীদদেরকে সংগঠিত দেখতে চেয়েছিলেন। যাতে করে পীর ভাইরা একে অপরের সুখে-দুঃখে সার্বক্ষণিক সহযোগিতা করতে পারে। সমাজ এবং দেশের যেকোন হক্ব প্রয়োজনে একত্রিত হয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তে পারে।

অনুষ্ঠানে সারাদেশ থেকে আগত সাংগঠনিক নেতৃবৃন্দ ঈমান-আক্বিদা, শরিয়ত-ত্বরিকত এবং সংগঠনের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন। আত্মার পরিশুদ্ধতাই, ঈমানের পরিপূর্ণতা সম্পৃক্ত গুরুত্বপূর্ণ নসিহত পেশ করেন তিনি।

মাও. মো. আনোয়ার হোসেন ও লায়ন মো. গোলাম হোসেন টিটোর যৌথ পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন ইঞ্জি. মো. শাকিলুর রহমান, মো. আব্দুর রহমান প্রধান, মাও. মো. ওয়ালী উল্যাহ, আলহাজ জয়নাল আবেদীন বেপারী, আলহাজ মেজবা মাল, ডা. ইসমাইল হোসেন শিরাজী, আলহাজ সিরাজ চৌকদার, আলহাজ মো. হোসেন, রাজরাজেশ^র ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মো. হযরত আলী বেপারী, ফরিদগঞ্জ গোবিন্দপুর ইউপি চেয়ারম্যান ডা. মো. শাহ আলম শেখ, দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শাহজালাল মোল্লা, চরসেনসাস ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বালা, উত্তর তারাবুনিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ ইউনুছ আলী মোল্লা, মাও. কবির আহম্মদ ওসমানী, আলহাজ লায়ন আব্দুর লতিফ তফাদারসহ আরো অনেকে।

আলোচনা সভা শেষে সকল নেতৃবৃন্দের সম্মতিক্রমে পীরে তরীকৃত হযরতুল আল্লামাহ ড. এস এম হুজ্জাতুল্লাহ নক্শবন্দী মুজাদ্দেদীকে উক্ত সংগঠনের ২০২২-২০২৫ সেশনের আমীরে আলা আলহাজ এম এ বারী খাঁন ও আলহাজ ইঞ্জি. মো. মাহফুজুর রহমানকে সিনিয়র নায়েবে আমীর, অ্যাড. ড. মো. কামরুল হাসান সাইফীকে মহাসচিব এবং মো. মোসলেহ উদ্দিন মানিককে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ১০১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়।

সকাল সাড়ে ১০টায় পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত, হামদ ও নাতে রাসূল (দ.) এর মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। সর্বশেষে সারাবিশ্বের মুসলমানদের দুঃখ দূর্দষা থেকে মুক্তি, কল্যান কামনা এবং সকল কবরবাসীর জন্য দোয়া ও মুনাজাতের মাধ্যমে কেন্দ্রিয় কাউন্সিল সমাপ্ত হয়।

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published.