লকডাউন বাস্তবায়নে মাঠে তৎপর চাঁদপুর সদর ইউএনও

চাঁদপুরে লকডাউনের ষষ্ঠ দিনেও কঠোর অবস্থানে ছিলেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সানজিদা শাহনাজ। লকডাউন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে চাঁদপুর জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিসের নির্দেশে সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে সেনাবাহিনী ও পুলিশ সদস্যরা শহরের প্রধান প্রধান সড়কে চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশি করেন।

এছাড়া জনসচেতনতার জন্য মাস্ক ব্যবহার করার জন্য পথচারীদের বুঝিয়ে বাড়ি মুখি করে। লকডাউন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মাঠে ছিল নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগন, সেনাবাহিনী, বিজিবি ও পুলিশ সদস্যরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

লকডাউনে সরকারি বিধিনিষেধ অমান্য করা এবং ভোক্তা অধিকার আইন লঙ্ঘন করে যারা বাহিরে বের হচ্ছে তাদেরকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে মামলা দিয়ে অর্থদণ্ড আদায় করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার (৬ জুলাই ) সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। চাঁদপুর শহরের কালীবাড়ি শপথ চত্বর এলাকা, পালবাজার গেট, বাস স্ট্যান্ড, চেয়ারম্যান ঘাটা, ওয়ারলেস বাবুরহাট সহ বিভিন্ন স্থানে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন চাঁদপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগন।

এতে যারা লকডাউন অমান্য করে বিনা কারণে বাইরে বের হয়েছে এবং যারা দোকানপাট খোলা রেখেছেন তাদের বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য ও দণ্ডবিধির ২৬৯ ধারায় জরিমানা আদায় করা হয়।

চাঁদপুর বাস স্ট্যান্ড মোড়ে পুলিশ প্রশাসন চেকপোস্ট বসিয়ে বহিরাগত গাড়ি মোটরসাইকেল তল্লাশি করে কাগজপত্র জটিলতা মামলা করেন। এছাড়া যারা ঘর থেকে বিনা কারণে বের হয়েছেন তাদেরকে সচেতন করার জন্য পুনরায় ফিরিয়ে দিয়েছেন।

চাঁদপুর সদর নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা শাহনাজ জানান, সরকার ঘোষিত লকডাউন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ষষ্ঠ দিনে জনসচেতনতা জন্য জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সেনাবাহিনী ও পুলিশ যা করা দরকার সবটুকু করেছে। যারা বিনা কারণে ঘর থেকে বের হয়েছে তাদেরকে বুঝিয়ে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। লকডাউন বাস্তবায়নে প্রশাসন কঠোর ভূমিকা রয়েছে। করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বগতি দমন করতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন সর্বদা কাজ করে যাচ্ছে। মাক্স ব্যবহার শুরু করার সামগ্রী ব্যবহার সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও কোন অবস্থাতেই কাজ ছাড়া ঘরের বাইরে বের না হওয়ার অনুরোধ জানান।

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *