লকডাউন বাস্তবায়নে সদর উপজেলা প্রশাসন

নিজস্ব প্রতিবেদক:

চাঁদপুর জেলা সদরে ‘কঠোর লকডাউন’ বাস্তবায়নে কঠোর ভূমিকা পালন করছে সদর উপজেলা প্রশাসন ও সেনাবাহিনী। তবে কিছুটা ভোগান্তি পোহাচ্ছেন একান্ত প্রয়োজনে বের হওয়া যাত্রীরা। লকডাউনের কারণে গনপরিবহন বন্ধ থাকায় পায়ে হেটেঁই গন্তব্যে যেতে হচ্ছে তাদের।

শুক্রবার (২জুলাই) সকাল থেকে নিউজ লেখা পর্যন্ত চাঁদপুর সদর উপজেলায় কঠোর বিধি-নিষেধ (লকডাউন) পালনে জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট অঞ্জনা খান মজলিশ নির্দেশনায় সমন্বিতভাবে অবিরাম কাজ করে যাচ্ছেন সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সানজিদা শাহনাজ ও কুমিল্লা থেকে আগত বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।

চাঁদপুর সদর উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা( ইউএনও) সানজিদা শাহনাজ বলেন, করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত বিধি-নিষেধ কঠোরভাবে (লকডাউন) কার্যকর করতে জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ স্যারের নির্দেশে সদর উপজেলা প্রশাসন তৎপর। সেনাবাহিনী, পুলিশ, বিজিবি ও ব্যাটেলিয়ান আনসার সদস্যসহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় জনগনকে সচেতন করার জন্য কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, সরকার ঘোষিত বিধি-নিষেধ (লকডাউন) অমান্য করে বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে রাস্তায় ঘুরাঘুরি ও মাস্ক না পরার অপরাধে ৮ মামলায় ৮ জন ব্যক্তি কে ২ হাজার ৮ শ’ জরিমানা আদায় করা হয়েছে। একই সাথে সদর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করা হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সদর উপজেলা পরিষদ এলাকার চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক সড়কে চেকপোস্ট বসিয়ে পণ্যবাহী ও জরুরি সেবায় নিয়োজিত যানবাহন ছাড়া বাকি যানবাহন (অটোবাইক ও সিএনজি) গুলো ফিরিয়ে দিচ্ছে পুলিশ। ফলে পায়ে হেঁটে অনেকেই শহরের দিকে রওনা হয়েছেন।

এদিকে পুলিশ কঠোর অবস্থানে থাকাই উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সম্পূর্নভাবে বন্ধ রয়েছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও পিবনী বিতান। এছাড়াও রাস্তায় চলাচল করতে দেখা যায়নি বড় ধরণের কোন গনপরিবহন। তবে কিছু কিছু সিএনজি, অটো রিক্সা ও মোটরসাইকেল চলাচল করতে দেখাগেছে।

বাবুরহাট এলাকার বাসিন্দা রাজ্জাক বলেন, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁদপুর জেনারেল (সদর হাসপাতাল) হাসপাতালে মা চিকিৎসাধীন রয়েছেন তাই শহরে যাওয়ার জন্য বাবুরহাট স্কুল এন্ড কলেজের সামনে দুই ঘন্টা দাঁড়িয়ে আছি। সরাসরি গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর কোন পরিবহন নাই। তাই অর্ধেক পথ পায়ে হেঁটে চলে আসছি।
এদিকে গত দুই দিনে বিভিন্ন যানবাহনকে আর্থিক জরিমানাসহ প্রায় দুই শতাধিক পরিবহনকে জব্দ করেছে ট্রাফিক পুলিশ।

চাঁদপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুল রশিদ বলেন, লকডাউনের কারণে চাঁদপুরে বন্ধ রয়েছে সকল দোকানপাট ও শপিং মল। গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়ে প্রয়োজনীয় পরিবহন ছাড়া বাকি সব পরিবহনকে ঘুরিয়ে দেয়া হচ্ছে। পুলিশ সরকার ঘোষিত লকডাউন বাস্তবায়নে কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে।

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *