স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে চাঁদপুরে ৭ দিনব্যাপী কর্মসূচি

নিজস্ব প্রতিবেদক॥

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে আজ ১৭ মার্চ থেকে ৭দিন ব্যাপী মেলাসহ বিভিন্ন কর্মসচি গ্রহণ করেছে চাঁদপুর জেলা প্রশাসন।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়,জাতির পিতার জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে চাঁদপুর জেলার সকল সরকারি-বেসরকারি ভবনে আলোকসজ্জা করা হচ্ছে। মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে চাঁদপুর স্টেডিমিয়ামে আয়োজিত ৭ দিন ব্যাপী কর্মসূিচর মধ্যে রয়েছে ১৭ মার্চ সকাল ৯ টায় ’মুক্তির উৎসব ও সুবর্ণজয়ন্তী মেলার উদ্বোধন” এবং ৬১টি স্টল পরিদর্শন।
সাড়ে ৯টায় মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত বাংলাদেশের ৫০ বছরের সাফল্য ও অর্জন বিষয়ক ভিডিও প্রদশর্নী। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নেতৃত্বে ৫০টি জাতীয় পতাকা সম্বলিত সুবর্ণজয়ন্তী র‌্যালি অনুষ্ঠিত হবে। বেলা ১১ টায় আলোচনা সভা ,সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হবে। ১৭-২৩ মার্চ বীর মুক্তিযোদ্ধা ও প্রবীণদের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হবে।

মেলায় ১৮-২৩ মার্চ বিকাল ৩টা থেকে রাত ৮টা পযন্ত স্বাধীনতা যুদ্ধে বীরাঙ্গনাসহ সকল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অবদান নিয়ে ধারাবাহিক আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।
জানা যায়, মেলায় জেলার সকল সরকারি-বেসরকারি বিভাগ অংশগ্রহণ করবে। ৬১টি স্টলে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, বাংলাদেশের সাফল্য ও অর্জন প্রদর্শন করবে।

চাঁদপুর স্টেডিয়ামে বৃহৎ আকৃতির মানসম্মত মঞ্চ গঠন করা হয়েছে যেখানে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষ্যে আলােচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হবে।৫০টি জাতীয় পতাকা নিয়ে ৫টি ট্রাকের সুবর্ণজয়ন্তী র‌্যালির অগ্রভাগে পুলিশ বাহিনীর একটি গাড়ি প্রটোকলের দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবেন।

ট্রাকসমূহ চাঁদপুর সদর থেকে যাত্রা আরম্ভ করে চাঁদপুরের সকল উপজেলা প্রদক্ষিণ করে জেলা সদরে প্রত্যাবর্তন করবে। প্রতিটি ট্রাকে ১০ টি জাতীয় পতাকার সাথে ১০ জন মুক্তিযোদ্ধার সাথে ১ জন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট এবং একজন ডাক্তার থাকবেন ।

ট্রাক র‌্যালি যখন উপজেলায় পৌঁছাবে তখন সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং অফিসার ইন চার্জ তাদেরকে অভ্যর্থনায় নিয়োজিত থাকবেন। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীদেরকে মেলা পরিদর্শনের থাকবেন। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষ্যে মুক্তির উৎসব ও সুবর্ণজয়ন্তী মেলায় সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের তথ্য ভিত্তিক আলোচনা সভা,প্রতিদিন বিষয়ভিত্তিক প্রতিযোগিতা,বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সমাবেশ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হবে।

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published.