স্বাস্থ্যবিধি মেনে আনন্দ-উল্লাসে ক্লাসে হাজির শিক্ষার্থীরা

আনোয়ারুল হক ॥

মহামারি করোনা পরিস্থিতির মধ্যে প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা নিয়ে সারা দেশের ন্যায় চাঁদপুরেও স্কুল-কলেজ খুলেছে। শুরু হয়েছে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান কার্যক্রম। স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ কওে গতকাল রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রথম দিন সকাল থেকে ক্যাম্পাসে আসতে শুরু করেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। দীর্ঘ ১৭ মাস পর স্কুল-কলেজ খুলছে।

সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন স্কুল-কলেজ ঘুরে দেখা গেছে, প্রাইমারি, নিম্ন মাধ্যমিক থেকে কলেজ স্তর পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ক্লাসে পাঠদান চলছে। এরইমধ্যে প্রাথমিক,মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) জুড়ে দেয়া বিভিন্ন নির্দেশনা অনুসরণ করে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ শেষ করে। ছাত্রছাত্রীদের তাপমাত্রা পরীক্ষা করে সারিবদ্ধভাবে তাদের শিক্ষাঙ্গনে প্রবেশ করতে দেয়া হয়। শহরের আক্কাস আলী রেলওয়ে একাডেমীর প্রধান শিক্ষক গোফরান হোসেন শিক্ষার্থীদের ফুল দিয়ে বরণ করেছেন।

অধিকাংশ বিদ্যালয়ে এক বেঞ্চে একজন করে জেড আকারে বসানো হয় শিক্ষার্থীদের। অনেক স্থানে সাত ফুটের বেঞ্চে দুজন করে বসানো হয়। সীমিত আকারে কয়েকটি স্তরে ধাপে ধাপে ক্লাস নেওয়া হয়। অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের গেটে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ভিড় লক্ষ্য করা যায়। সস্তানকে স্কুলে পৌঁছে দিতে অনেক অভিভাবক প্রবেশ পথের গেটে ভিড় জমান। সেসব স্থানে স্বাস্থ্যবিধিও কিছুটা ঢিলেঢালা দেখা যায়।

চাঁদপুর জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা গিয়াসউদ্দিন পাটোয়ারী জানান,জেলায় মাধ্যমিক ও কলেজ মিলিয়ে ৩৩৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। সরকারি নির্দেশনার পর থেকেই কঠোর মনিটরিং করে শিক্ষার্থীদের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করা হয়েছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. সাহাবউদ্দিন জানান, করোনার কারণে বন্ধ হয়ে যাওয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে সরাসরি পাঠদান না হলেও প্রধান শিক্ষক এবং অন্যদের উপস্থিতি ছিল। তারপরও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিষয় কোথাও কোনো ঘাটতি রাখা হয়নি। সুতরাং সরকারি স্বাস্থ্যবিধি মেনে রবিবার শ্রেণি কক্ষে পাঠদানের সব প্রস্ততি নেওয়া হয়েছে।

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published.